আজ বাবা দিবস, ভালোবাসা বঞ্চিত প্রবীণ নিবাসের বাবারা 

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১৮ জুন, ২০১৭ ১১:৩৫:০৮
#

আজ রবিবার, বিশ্ব বাবা দিবস। পৃথিবীর সব সন্তানরা আজ নিজেদের মত ভালবাসবে তাদের বাবাকে। কেউ স্মরণ করবে, কেউবা বরন করে নিবে। কেউবা নতুন করে বাবাকে সাথে নিয়ে বেঁছে থাকার স্বপ্ন দেখবে। তবে সব বাবার ভাগ্যে আজ হয়তো জুটবে না ভালোবাসার চুমু।  তাদের কেউ কেউ প্রবীণ নিবাসে হয়তো সন্তানের কথা ভেবে শুধু চোখের পানিই ফেলবেন। তাদের সন্তান থেকেও যেন নেই। এ যেন কেমন এক অসহায়ত্ব। কেমন আছেন এসকল বাবারা?

মুজিবুল হক একটি কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন। পেইন্টিংয়ের প্রতি রয়েছে তীব্র ভালোবাসা। এখনও মাঝেমাঝে রঙতুলি নিয়ে বসেন। তবে সেই ছবি ঘরের সৌন্দর্য বাড়াল বা কমাল তা নিয়ে মোটেই ভাবেন না তিনি। কেননা, তিনি যে সময় কাটাতেই ছবি আঁকেন। তার হাতে যে এখন অফুরন্ত সময়। নিজেকে গুছিয়ে রাখতে তার আর ভালো লাগে না। এর ছাপ পাওয়া যায় তার ঘরজুড়ে। বিকাল ৪টা নাগাদ টেবিলে নাস্তার প্লেট, পড়ে রয়েছে কলা-ডিমের খোসা। দুপুরের খাবারের এঁটো প্লেট আর উচ্ছিষ্ট খাবারও পড়ে আছে আরেকপাশে। ঘরজুড়ে যত্রতত্র ছড়ানো ছিটানো নানা জিনিসপত্র।

তিনি বলেন, একটা সময় সুন্দর খেকে সুন্দরতর ছবি এঁকে বসার ঘর, শোবার ঘরের দেয়ালের সৌন্দর্য বাড়াতে ব্যস্ত ছিলেন তিনি। এই রমজানের মতো অনেক রমজান তার কেটেছে স্ত্রী আর ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে সেহরি ও ইফতার করে। সেই দিনগুলো সুন্দর সেই ছবিগুলোর সাথে ঘরের দেয়ালেই আটকে গেছে। এক সময় দেখেছেন ছেলে-মেয়ের ব্যস্ততা তাকে পাহারাদার হতে বাধ্য করেছে। যা ভাললাগে না তার। তাই চলে আসেন আগারগাঁও-এ অবস্থিত বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ ও জরা বিজ্ঞান এর প্রবীণ নিবাসে।

সত্তর বছর বয়সী এ বাবার উপলব্ধি, ছেলে-মেয়েদের মধ্যে মানবিকবোধ জাগ্রত করতে ও সঠিক শিক্ষা দিতে পারেননি বলে তাকে এখানে থাকতে হচ্ছে।

এমন ২২ জন বাবা থাকেন এই নিবাসে। তাদের মধ্যে সাবেক আমলাসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও আছেন।

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক বলেন, বাবা-মা তাদের সর্বস্ব ছেলেমেয়েদের পেছনে ব্যয় করে বৃদ্ধ বয়সে প্রবীণ নিবাসে থাকতে পারে না। তাই সরকার পিতা-মাতা ভরণপোষণ আইন করেছে। আইনের অধীনে ঢাকা শহরে ৮টি মামলা করা হয়েছে বলেও তিনি জানান। বাবা দিবসে তো অনেক সন্তান তাদের বাবাকে মিস করবে- এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, এমন মিস করাকে মেনে দিতে পারি না। তবে প্রবীণ নিবাসে বসবাসকারী বাবারা বলেন, তারা আইন করে ছেলে-মেয়েদের সাথে থকতে চান না। ভালবাসার মাধ্যমে যদি তাদের ঘরে জায়গা হয় তাহলেই তারা সেই ঘরে থাকতে চান।


জারিফ

Print