৫টি নয়, ১ এনআইডিতে সর্বোচ্চ ২০ সিম

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১৯ অক্টোবর, ২০১৭ ২১:০৯:৫৮
#

ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, “একজন গ্রাহক একটি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়ে সর্বোচ্চ ২০টি সিম রাখতে পারবেন বলে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে।”


আজ (বৃহস্পতিবার) সচিবালয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের উপস্থিতিতে বৈঠকে টেলিযোগাযোগ খাতের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।


২০১৬ সালে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে একটি জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়ে সর্বোচ্চ ২০টি সিম বায়োমেট্টিক পদ্ধতিতে নিবন্ধনের সুযোগের পরিবর্তে ৫ টিতে কমিয়ে আনার ঘোষণা দেওয়া হয়। ওই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে গত সেপ্টেম্বরে মোবাইল অপারেটরগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়।


বিটিআরসির হিসাবে গত অগাস্ট শেষ নাগাদ দেশে মোট মোবাইল ফোন গ্রাহক আছে ১৩ কোটি ৯৩ লাখের বেশি।


২০টির বেশি সিম রাখা বা বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা সিম হস্তান্তরের বিষয়ে গ্রাহকদের সতর্ক করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “গ্রাহকদের মনে রাখতে হবে, এখন বিটিআরসির বায়োমেট্রিক সেন্ট্রাল মনিটরিং সিস্টেম আছে। বিটিআরসি কিন্তু সুনির্দিষ্ট বলে দিতে পারছে, কোন অপারেটরের কতটি সিম গ্রাহকের আছে বা তিনি নিয়েছেন। “কেউ যদি নিজের সিম অন্যর কাছে বিক্রি করে তাহলে ধরা পড়ে যাবে।”


তিনি বলেন, “তারপর ২০টির অতিরিক্ত সিমের বিষয়ে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে সে সিদ্ধান্ত হবে। আপনার এতগুলো সিম আছে কোনটা রাখতে চান- এ অপশন গ্রাহকদের দেব কি না তাও ভেবে দেখা হবে।”


তারানা হালিম বলেন, “এই অপশন একবার দিয়ে দেখেছি, গ্রাহক কষ্ট করে টেক্সটও করে না, ডিঅ্যাকটিভও করে না। কাজেই আমাদের একটি মেকানিজম বের করতে হবে।”


এমবি  

Print