এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল সাবানে নেই কোনো জীবাণু ধ্বংসের ক্ষমতা!

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
০৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০১:৪০:২৭
#

আমরা হাতের ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসের জন্য অনেক ধরনের সাবান, হ্যান্ড ওয়াস বাজার থেকে কিনে আনি। এছাড়া টেলিভিশন খুললেই দেখা যায় এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল সাবানের নানা চটকদার প্রচারণা। কোনো কোনো কোম্পানি দাবি করে থাকে তাদের সোপ বা লিকুইড সোপের জীবাণু ধ্বংসের ক্ষমতা শতকরা ৯৯ দশমিক ৯৯ ভাগ। এ ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের ফুড এন্ড ড্রাগ নিয়ন্ত্রণের সর্বোচ্চ সংস্থা এফডিএ বলেছে, এসব সাবানের ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসের কোনো কার্যকারিতা নেই। বরং এন্টি ব্যাকটেরিয়াল সোপ সাধারণ সাবানের চেয়ে অধিক ক্ষতিকর। শুধু তাই নয়, এফডিএ সাবানের মোড়ক বা বোতলের মোড়কে এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল লেখা যাবে না বলে সতর্ক করে দিয়েছে।


এফডিএ বলেছে, এন্টি ব্যাকটেরিয়াল হ্যান্ড এন্ড বডি ওয়াশ নামের যেসব প্রোডাক্টস পাওয়া যায় সেসব প্রডাক্টে কিছু কিছু ক্ষতিকর উপাদান রয়েছে যা কোনো ভাবেই বাজারজাত করা যাবে না। এফডি এর বিশেষজ্ঞগণ বলছেন, এ ধরনের এন্টি ব্যাকটেরিয়াল সোপ বা লিকুইড সোপে কম বেশি ১টা থেকে ১৯টা পর্যন্ত উপাদান থাকে। সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় ট্রাইক্লোসান ও ট্রাইক্লোরো কার্বন। এফডিএ বলছে, গবেষণায় প্রতীয়মান হয়েছে, লিকুইড সাবানের ট্রাইক্লোসান থাইরয়েড হরমোনের মাত্রা কমাতে ভূমিকা রাখে।


এদিকে এফডিএ সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, উৎপাদক কোম্পানি সমূহের এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল সোপ বা ওয়াশ নামে কোনো পণ্য বাজারজাত করা উচিত নয়। এ ব্যাপারে এফডি এর ডাইরেকটর ড: জানেট উডকক-এর অভিমত হচ্ছে, সাধারণ মানুষ ধারণা করে থাকে অথবা তাদেরকে ধারণা দেওয়া হয় এই বলে যে, এন্টি ব্যাকটেরিয়াল সোপ বা ওয়াশ সাধারণ সাবানের চেয়ে অধিক জীবাণু ধ্বংসের ক্ষমতা রাখে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল সোপ জীবাণু ধ্বংস করতে পারে এমন কোনো নজীর পাওয়া যায়নি। এটা সাধারণ সাবানের চেয়ে অধিক জীবাণু নাশক এমন তথ্যও পাওয়া যায়নি। বরং এফডি এর এই বিশেষজ্ঞের মতে এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল সোপ সাধারণ সাবানের চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতিকর। তবে এফডিএ বলছে, অনেক কোম্পানি বাস্তবতা বুঝতে পেরে তাদের পণ্যের এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল এজেন্টসমূহ প্রত্যাহার করা শুরু করেছে।


চুলপড়া, এলার্জি, চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ


ডা. মোড়ল নজরুল ইসলাম


এসএম

Print