রোহিঙ্গাদের দেখতে শূন্যরেখায় নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধিদল     | timenewsbd.com

রোহিঙ্গাদের দেখতে শূন্যরেখায় নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধিদল    

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
২৯ এপ্রিল, ২০১৮ ১৭:৫৭:২২
#

মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও উগ্র-বৌদ্ধরা রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর গণহত্যা-ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আশা রোহিঙ্গাদের অবস্থা দেখতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল কক্সবাজার সীমান্তের শূন্যরেখায় পৌঁছেছে।


আজ (রোববার) সকাল সোয়া ৯টার দিকে ৩০ সদস্যের প্রতিনিধি দলটি নাইক্ষ্যংছড়ির তমব্রুর কোনারপাড়া জিরো পয়েন্ট এলাকায় পৌঁছায়। সেখানে তাঁরা দুপুর ১টা পর্যন্ত অবস্থান করবেন এবং রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলবেন।  


প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে রয়েছেন চলতি (এপ্রিল) মাসের জন্য জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির দায়িত্বপ্রাপ্ত দক্ষিণ আমেরিকান দেশ পেরুর গুস্তাভো মেজা-চুয়াদ্রা।


শূন্যরেখা থেকে ফিরে প্রতিনিধিদলের সদস্যরা কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। শেষে কুতুপালং ডি-ব্লকে সাংবাদিকদের ব্রিফ করার কথা রয়েছে।


গতকাল শনিবার (২৯ এপ্রিল) বিকেলে কুয়েত থেকে বিমানে সরাসরি কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছায় ৩০ সদস্যের এই প্রতিনিধিদল। কড়া নিরাপত্তার মধ্যে বিমানবন্দর থেকে প্রতিনিধিদল ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপে যায়।


ওই হোটেলে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা, জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা, নিরাপত্তা বাহিনী ও রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রত্যাবাসন কমিশনারের সঙ্গে মতবিনিময় করেন নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা।  


এ সময় বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে জাতিসংঘের কাছে বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মিয়ানমার সবসময় বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে।


রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগের আহ্বান জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের ওপর চীনের চাপ থাকলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন অনেকটা সহজ হতে পারে। সরকারের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে তিনটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। এগুলো হচ্ছে-রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন, তাদের অধিকার এবং প্রথাগত ও অপ্রথাগত নিরাপত্তা।


আজ (২৯ এপ্রিল) বিকেলেই ঢাকার উদ্দেশে বিমানযোগে কক্সবাজার ত্যাগ করবেন প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। আগামীকাল (সোমবার) সকাল সাড়ে ৯টায় প্রতিনিধিদলের সদস্যদের গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের কথা রয়েছে।


এরপর সকাল সাড়ে ১০টায় মিয়ানমারের উদ্দেশে বিমানযোগে ঢাকা ত্যাগ করবে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উচ্চপর্যায়ের এ প্রতিনিধিদল।


উল্লেখ্য, গত বছরের ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনী ও উগ্র-বৌদ্ধরা রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর ধর্ষণ-গণহত্যা-অগ্নিসংযোগ শুরু করলে সেখান থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিচ্ছে মুসলমানরা। জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী- গত বছরের ২৫ আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা ৬ লাখ ৮০ হাজার। তার আগে বিভিন্ন সময় সেনাবাহিনী ও উগ্র-বৌদ্ধদের নির্যাতনে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়ে আছে ৪ লাখের বেশি রোহিঙ্গা।


আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্স এর অনুসন্ধানে বলা হয়েছে,বর্মী সৈন্যরা গ্রামবাসীদের সাথে নিয়ে কিভাবে রোহিঙ্গাদের উপর গণহত্যা চালিয়েছে। রয়টার্স বলছে, রাখাইনের উত্তরাঞ্চলীয় ইন দিন গ্রামে গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর গণহত্যার ঘটনা ঘটেছিলো। এই গ্রামে ১০ জন রোহিঙ্গাকে হত্যার বিষয়ে তাদের দুই সাংবাদিক ওয়া লো এবং চ সো উ-কে সেখানে তথ্য প্রমাণ সংগ্রহ করে।


রয়টার্সেরঅনুসন্ধানে বলা হয়, ওই গ্রামে অভিযানের সময় রোহিঙ্গা পুরুষদের একটি দল নিজেদের জীবন বাঁচাতে একটি জায়গায় গিয়ে জড়ো হয়। তখন ওই গ্রামের কয়েকজন বৌদ্ধ পুরুষ একটি কবর খনন করার নির্দেশ দেন। তারপর ওই ১০ জন রোহিঙ্গা পুরুষকে হত্যা করা হয়। বৌদ্ধ গ্রামবাসীরা অন্তত দু’জনকে কুপিয়ে এবং বাকিদেরকে সেনাবাহিনী গুলি করে হত্যা করেছে।


এমবি

Print