গরমে যেসব খাবার অ্যাসিটিডি দূর করে

স্বাস্থ্য ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
৩০ এপ্রিল, ২০১৮ ২২:৫০:৩০
#

গ্রীষ্মের সময় তাপমাত্রা বাড়ার সাথে সাথে স্বাস্থ্যের ব্যাপারে আরও বেশি সচেতন হতে হয়।


যারা যেখানে সেখানে নিয়ম না মেনে খাওয়াদাওয়া করেন তাদের জন্য এই মৌসুম আরও বিপদজনক। এ কারণে এই সময় আরও বেশি সচেতন থাকা প্রয়োজন।


গরমে পানিবাহিত রোগ এবং অ্যাসিডিটির সমস্যা বেশি হয়। তীব্র তাপদাহে বুক জ্বালাপোড়া, নিঃশ্বাসে সমস্যা , গলায় টক টক বোধ করা, বুকে ব্যথা এই ধরনের অ্যাসিডিটির সমস্যা হতে পারে। গরমে অ্যাসিডিটি কমানোর জন্য খাবারের দিকে বিশেষ নজর দেওয়া প্রয়োজন।


অতিরিক্ত গরমে শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দিতে পারে। এজন্য প্রচুর পরিমানে পানি, ডাবের পানি, লেবু পানি, বাটার মিল্ক , কোল্ড মিল্ক -এগুলো খাওয়া উচিত। ডাবের পানি প্রাকৃতিকভাবে শরীর থেকে টক্সিন বের করে দেয়। এতে থাকা পটাশিয়াম ও খনিজ শরীরের জন্য বেশ উপকারী। এগুলো অ্যাসিডিটি দূর করতে সাহায্য করে।


ঠান্ডা দুধ শরীরে অতিরিক্ত অ্যাসিডিটি জমা প্রতিরোধ করে।


গ্রীষ্মের সময় দই কিংবা বাটার মিল্ক পাকস্থলীর জন্য খুবই উপকারী। এগুলো হজমশক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। আর হজম ঠিকমতো হলে অ্যাসিডিটির সমস্যাও কম হয়।


গ্রীষ্মের ফল যেমন-আম, বাঙ্গি, তরমুজ- এগুলোতে প্রচুর পরিমান পটাশিয়াম ,ম্যাগনেশিয়াম, ভিটামিন সি থাকে। এগুলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।


সেইসঙ্গে অ্যাসিডিটি কমায়। এছাড়া কলা প্রাকৃতিক অ্যান্টাসিড হিসেবে কাজ করে। এ কারণে গরমের সময় এসব ফল খাওয়া উচিত।


বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি যেমন-মিষ্টি কুমড়া, পটল,লাউ এগুলোতে প্রচুর পরিমাণে পানি এবং খনিজ থাকে। এগুলো হজমে সহায়তা করে এবং অ্যাসিডিটি কমায়।


এছাড়া ক্যাপসিকাম এবং শসাও অ্যাসিডিটির জন্য উপকারী। এ কারণে এসময় বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন সবজি রান্না ছাড়াও সালাদ এবং সবজির স্যুপ খাওয়ার পরামর্শ দেন।সূত্র: এনডিটিভি।এএস

Print