কোটার দাবিতে আলটিমেটাম নিয়ে বিরক্ত মন্ত্রিসভা | timenewsbd.com

কোটার দাবিতে আলটিমেটাম নিয়ে বিরক্ত মন্ত্রিসভা

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১৪ মে, ২০১৮ ২৩:৩৮:১৮
#

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও আলটিমেটাম নিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেছেন মন্ত্রিসভার সদস্যরা।


প্রধানমন্ত্রী বলেন,আমি তো আগেই বলেছি কোটা থাকবে না। এরপরও আল্টিমেটাম, আন্দোলনের হুমকি দেয়া হচ্ছে। এটার তো কোনো যুক্তি নেই।


আমরা এটা করবো। কিন্তু এখনই এটা করতে হবে? এ জন্য তো সময় লাগবে। তারপরও হুমকি দেয়াটা বাড়াবাড়ি। আন্দোলনকারীদের আরও ধৈর্য্যের পরিচয় দেয়া উচিত। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আজ(সোমবার) মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। বৈঠকের একটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।


বৈঠক সূত্র জানায়, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ কোটা সংস্কার প্রসঙ্গে অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে কথা বলেন।


তোফায়েল প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, কোনো কোনো মহল কোটার বিষয় নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। এটা দ্রুত করা যায় কি-না সে বিষয়ে একটু ভাবেন।


এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোটা নিয়ে আমি তো আগেই সিদ্ধান্ত দিয়ে দিয়েছি। কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপনের দাবিতে আবারও আন্দোলন শুরু হবে কেন। কোটার বিষয়টি বাস্তবায়ন করতে সময় লাগবে।


তিনি বলেন, প্রজ্ঞাপনের দাবিতে সবকিছু বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয়া, এটা কী? এর তো কোনো যুক্তি নেই। আমরা এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দিয়েছি। কিন্তু সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সময় তো লাগতে পারে। এটা নিয়ে হুমকি দেয়া, আলটিমেটাম দেয়া; এটা তো বাড়াবাড়ি।


এদিকে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী সরকারি চাকরিতে কোটাপ্রথা সংস্কারে প্রজ্ঞাপন চেয়ে শাহবাগ মোড় অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারী সাধারণ শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীরা। আজ দুপুর ১টার দিকে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেন তারা।


এ সময় প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত অবরোধ চালিয়ে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের দুই যুগ্ম-আহ্বায়ক নুরুল হক নুর এবং মুহাম্মদ রাশেদ খান।


এর আগে গত ৮ এপ্রিল থেকে টানা পাঁচদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের প্রায় সব পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করে। পরে ১২ এপ্রিল জাতীয় সংসদের অধিবেশনে কোটা পদ্ধতি বাতিল ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


ওই ঘোষণার পর এক মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়নি। সর্বশেষ ১০ মে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মোজাম্মেল হক খান ‘কোটা সংস্কার বা বাতিলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে গঠিত কমিটির প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পাঠানো হয়েছে’ বলে জানালেও প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত জানাননি।


এরই পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল থেকে প্রজ্ঞাপন জারির জন্য নতুন করে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা।


গতকাল বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রাস্তাঘাট অবরোধ করে বিক্ষোভ কর্মসূচি চালায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় আন্দোলনকারীরা আজ দুপুর ১টা থেকে শাহবাগ এলাকা অবরোধ করে রেখেছে। এএস

Print