‘ঠান্ডা মাথায় একরাম হত্যা’, ভয়ঙ্কর অডিও প্রকাশ | timenewsbd.com

‘ঠান্ডা মাথায় একরাম হত্যা’, ভয়ঙ্কর অডিও প্রকাশ

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
০২ জুন, ২০১৮ ০১:৪৯:২২
#

“হ্যালো! আমি কমিশনারের সঙ্গে কথা বলতে চাচ্ছি।… আমি উনার মিসেস বলতেছি… হ্যালো! হ্যালো!...”- উৎকণ্ঠায় উচ্চস্বরে এমনিভাবে কথা বলছেন মোবাইল ফোনের একপ্রান্ত থেকে। এর খানিক পর গুলির শব্দ… উহ্… গোঙানি…। এরপর আরেকটি গুলির শব্দ। এপাশে চিৎকার- “ও আল্লা…!”


মাদকবিরোধী অভিযানে কক্সবাজারে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার আগে টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হকের সঙ্গে টেলিফোনে ‘শেষ কথোপকথনের’যে অডিও রেকর্ড তার পরিবার প্রকাশ করেছে, তাতে পুরো মাদকবিরোধী অভিযান এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বলে মনে করছেন মানবাধিকার কর্মীরা।     


অডিও কথোপকথনের পৃথক চারটি ক্লিপ মিলিয়ে ১৪ মিনিট ২২ সেকেন্ডের একটি অডিও ক্লিপ। ক্লিপটি সরবরাহ করেছেন কক্সবাজারে মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত পৌর কমিশনার একরামুল হকের স্ত্রী আয়েশা বেগম।   


তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার (৩১ মে) কক্সবাজারে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, মোবাইল ফোনে নারীর কণ্ঠটি তাঁর।  


একরামের পরিবারের দেওয়া ওই অডিও নিয়ে তাঁর বড়ভাই নজরুল ইসলাম বলেছেন, একরামের ফোন খোলা ছিল বলে এ প্রান্তে পুরো ঘটনাপ্রবাহ রেকর্ড হয়েছে ফোনের অটোরেকর্ডারে।      


একরামুল হকের স্ত্রী আয়েশা বলেন, তিনি গত ২৬ মে রাতে তাঁর স্বামীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলার চেষ্টা করছিলেন। সাংবাদিকদের অডিওটির ক্লিপ দিয়ে নিহত কমিশনারের স্ত্রী অভিযোগ করেন, তাঁর স্বামীকে “ঠান্ডা মাথায় হত্যা করা হয়েছে।”



জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, এ ধরনের সব হত্যাকাণ্ডের বিচারিক তদন্ত হওয়া দরকার। 


আইনকে ‘পাশ কাটিয়ে’কাজ করতে গেলে যে বিপদ ঘটতে পারে, একরামের ঘটনায় তা ‘স্পষ্ট হয়ে গেছে’বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক মিজানুর রহমান।


আর ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান একে বর্ণনা করেছেন ন্যায় বিচার, আইনের শাসন ও গণতন্ত্রের জন্য ‘অশনি সংকেত’হিসেবে।  


সারা দেশে চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে ১৩ দিনে নিহত ১২২ জনের মধ্যে কক্সবাজারের টেকনাফ পৌরসভার কাউন্সিলর একরামুল হক একজন, যিনি গত ২৬ মে রাতে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন বলে র‌্যাবের ভাষ্য। 


সংবাদ সম্মেলনে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন আয়েশা এবং তাঁর স্বামী টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি একরামকে “নির্দোষ” বলে দাবি করেন। তাঁর দুই মেয়ে তাহিয়াত ও নাহিয়ান এবং একরামুলের ভাই নজরুল ইসলাম সেসময় উপস্থিত ছিলেন।


আয়েশা সাংবাদিকদের বলেন, একটি বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তার ক্রমাগত ফোনের কারণে গত ২৬ মে রাত ৯টার দিকে একরাম বাড়ি থেকে বের হন। রাত ১১টার সময়ও বাড়ি ফিরে না এলে, তার মেয়ে সোয়া ১১টার দিকে ফোন করে। সেসময় একরাম মেয়েকে জানান যে, তিনি একজন মেজর সাহেবের সঙ্গে হ্নীলা যাচ্ছেন। যে কথা অডিও ক্লিপটিতেও শোনা যায়।


এরপর, একরাম টিএনও অফিসের যাওয়ার কথাও মেয়েকে বলেন। “কতক্ষণ হবে?”- মেয়ের এমন প্রশ্নের জবাবে একরাম বলেন, “বেশিক্ষণ লাগবে না। আমি চলে আসবো ইনশাল্লাহ।”


স্বামীর খোঁজ নেওয়ার জন্যে আয়েশা ১১টা ৩২ মিনিটে ফোন দিলে ফোনটি রিসিভ করা হয়। কিন্তু, একরাম কিছু বলছিলেন না। আয়েশা বলেন, “হ্যালো!... হ্যালো!… হ্যালো কে? আমি কমিশনারের সাথে কথা বলতে চাচ্ছি।… আমি উনার মিসেস বলতেছি… হ্যালো! হ্যালো!...” এমন সময় ফোনের অপর পাশের অনুচ্চ স্বরে কথা শোনা যায়। শোনা যায় ট্রিগার টানার শব্দও। তারপর গুলি।


একপাশে “ও আল্লা” বলে নারী ও শিশুকণ্ঠে আর্ত-চিৎকার শোনা যায়। “আমার জামাই কিচ্ছু করে নাই।… আমরা বিনা দোষী।…” বলে একজন নারীর কান্না। ফোনের অপর পাশে বাঁশির ফুঁ… আতঙ্কিত কণ্ঠে গালিগালাজের আওয়াজ।


র‌্যাবের লিগ্যাল এবং মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান গতকাল (৩১ মে) বলেন, “অভিযানের সময় কী ঘটেছিলো তা গণমাধ্যমের খবরে প্রকাশিত হয়েছে। তিনি (একরাম) যে মাদকের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তার যথেষ্ট প্রমাণ গণমাধ্যমের খবরগুলোতেই রয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীদের যে তালিকা, তাতেও তার নাম রয়েছে।”  


আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, “আমি অডিওটি এখনও শুনিনি। অনেকে আমাকে প্রশ্ন করেছে।  যেহেতু এরকম একটি কথা এসেছে, এটা তো ইনকোয়ারি ছাড়া কিছু করা যাচ্ছে না। আমি বিষয়টি ইনেকোয়ারি করে দেখব।”


এমবি    

Print