৩০ দিনের মধ্যে শিশুদের ফেরত দেয়ার নির্দেশ আদালতের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
২৮ জুন, ২০১৮ ১৪:৪৬:৪০
#

অবৈধ অভিবাসনের দায়ে আটক শিশুদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত।


ওই আদালত বলেছে, প্রশাসনকে আগামী ৩০ দিনের মধ্যেই এটা বাস্তবায়ন করতে হবে। আর যেসব শিশুদের বয়স পাঁচ বছর বা তার নিচে তাদেরকে আগামী দুই সপ্তাহ অর্থাৎ ১৪ দিনের মধ্যে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে হবে।


যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ ক্যালিফোর্নিয়ার সানদিয়াগোর আদালতে এই আদেশ দেন বিচারক দানা সাব্রো। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।


খবরে বলা হয়, অবৈধ অভিবাসনের বিরুদ্ধে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে সানদিয়াগোর আদালত।


মেক্সিকো সীমান্তের কাছে অস্থায়ী শিবিরে আটক এক অভিবাসী শিশুর পক্ষে ওই আদালতে মামলা করে আমেরিকান সিভিল লিবার্টিস ইউনিয়ন। সাত বছর বয়সী ওই বালিকাকে তার বাবা-মায়ের থেকে আলাদা করে রাখা হয়েছে।


এছাড়া মামলার অভিযোগে আরেক বালকের কথা উল্লেখ করা হয়। তার পরিবার ব্রাজিল থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হয়ে এসেছে। কিন্তু সম্প্রতি বাবা-মায়ের থেকে পৃথক করে তাকে মেক্সিকো সীমান্তের কাছে নির্মিত শিবিরে রাখা হয়। মঙ্গলবার এ মামলার রায় দেয় সানদিয়াগো আদালত।


রায়ে আর কোনো শিশুকে তাদের পরিবার থেকে পৃথক না করার নির্দেশ দেয়া হয়। আর যেসব শিশু ইতিমধ্যেই আশ্রয় শিবিরে নেয়া হয়েছে, আদালত তাদেরকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে পরিবারে ফেরত পাঠানোর আদেশ দেয়।


এজন্য ৩০ দিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে। আর যাদের বয়স পাঁচ বছর বা তার কম, তাদেরকে রায় প্রকাশিত হওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে ফেরত পাঠানোর কথা বলা হয়েছে। এছাড়া, আগামী দশ দিনের মধ্যে আটক শিশুদের সঙ্গে তাদের বাবা-মায়ের দেখা করার সুযোগ দেয়ার জন্য মার্কিন প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।


এর আগে গত সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক নির্বাহী আদেশে যুক্তরাষ্ট্রে অনুপ্রবেশকারী শিশুদের আশ্রয় শিবিরে নেয়ার প্রক্রিয়া স্থগিত করেন। ট্রাম্পের এ ধরনের পদক্ষেপ নজিরবিহীন। কেননা তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার আগে থেকেই অভিবাসনবিরোধী বক্তব্য দিয়ে আসছিলেন। এমনকি তিনি বৈধ অভিবাসনও বন্ধ করে দেয়ার পক্ষপাতি।


তবে ট্রাম্পের এই নির্বাহীর আদেশ মেক্সিকো শিবিরে আটক শিশুদের ওপর কোনো প্রভাব ফেলেনি। সেখানে প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে ইতিমধ্যেই ২ হাজারেরও বেশি শিশুকে আটকে রাখা হয়েছে। আটক এসব শিশুদের অনেকেই পৃথিবীতে এসেছেন মাত্র ২ থেকে ৫ বছর পূর্বে। ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশে এসব আটক শিশুদের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করা হয়নি।


মার্কিন প্রশাসনের এমন অমানবিক সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছে মানবাধিকার ও শিশু সংস্থাগুলো। দ্য আমেরিকান সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়ন বলছে, আটক শিশুদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার জন্য সরকারের কোনো কার্যকর পরিকল্পনা নেই। মানবাধিকার আইনজীবী লি গালার্ন্ট বলেন, প্রতি রাতে সেখানকার ছোট ছোট শিশুরা বাবা-মাকে কাছে পাওয়ার জন্য কান্না করে।


এদিকে, ট্রাম্পের অভিবাসন নীতিকে চ্যালেঞ্জ করে মামলা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের অন্তত ১৮টি রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেলরা। তারা বলছেন, অভিবাসী শিশুদের আটক করার ওপর ট্রাম্পের স্থগিতাদেশে অনেক জটিলতা রয়েছে। তাই এটা কাজের না।


এতে শিশুদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার জন্য অর্থ পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। কিন্তু অর্থের পরিমাণ ও পরিশোধের মাধ্যম উল্লেখ করা হয়নি। নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারবারা আন্ডারউড বলেন, পরিবার থেকে শিশুদের পৃথক রাখা অমানবিক, অযৌক্তিক ও অবৈধ সিদ্ধান্ত। এটা বন্ধ করার জন্য আমরা মামলা করেছি।


জেড

Print