ছাত্রলীগ নেতার অত্যাচারে অতিষ্ট এলাকাবাসী

লক্ষ্মীপুরজেলা করেসপন্ডেন্ট
টাইম নিউজ বিডি,
১২ জুলাই, ২০১৮ ২১:৪৬:১৬
#

লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম আহবায়ক আবু তালেব আবাও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকার মানুষ।


অভিযোগ রয়েছে, ছাত্রলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে চন্দ্রগঞ্জ এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে সে নিজেকে বাহিনী প্রধান হিসেবে পরিচয় দিয়ে আসছে বলে জানান স্থানীয়রা।


তার এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে ভয়ে কেউ মুখ খুলছেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ছাত্রলীগ নেতা তালেবের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছে।


আবু তালেব চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক ছিলো। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ওই কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করা হয়। সে চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের আবাও সভাপতি প্রার্থী।


এদিকে আবু তালেব নেতৃত্বে আসলে তার অনুসারীরা চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপকর্মে বেপরোয়া হয়ে উঠবে বলে ধারণা করছে পূর্বের নেতারা।


গেল বছর ৩১ অক্টোবর রাত ৮টার দিকে মান্দারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আলাউদ্দিনের জম্মদিন পালন করছিল তার অনুসারীরা। এ সময় একই কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক আবু তালেব ও তার সমর্থকরা হামলা চালায়। এতে কাজী নিজাম, সম্রাট, সজিব হাসান তাসকিন ও আবদুর ছাত্তারসহ পাঁচজন আহত হন। এ ঘটনার ২দিন পরই দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে আবু তালেবসহ ওই কমিটি বিলুপ্ত করেছে জেলা ছাত্রলীগ।


একই বছর ৯ নভেম্বর চন্দ্রগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি সভায় শ্লোগান দেয়াকে কেন্দ্র করে যুবলীগ নেতা মোরশেদ আলম ও ছাত্রলীগ নেতা কাজী বাবলুর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতিসহ নেতাকর্মীদের সামনে ব্যাপক চেয়ার ভাংচুর করা হয়। এতে আহত হয় ১০জন। এ সংঘর্ষের নায়ক ছিলো তৎকালিন যুগ্ন আহবায়ক আবু তালেব।


চলতি বছরের ১৮ এপ্রিল শহরের বালিকা বিদ্যা নিকেতন মাঠে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ/নবায়ন উৎসব অনুষ্ঠান চলাকালে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কাজী বাবলু, আবু তালেব ও লোটাস গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় সমাবেশ স্থলের শতাধিক চেয়ার ভাংচুর করা হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৫ নেতাকর্মী আহত হয়। পরে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।


এদিকে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, আবু তালেব দীর্ঘদিন থেকে চন্দ্রগঞ্জ থানা এলাকায় ছাত্রলীগ পরিচয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছে। এলাকায় চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মে লীপ্ত রয়েছে। তার বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করতে গেলে তাকে নানা ভাবে হয়রানী করে।


এবিষয়ে তালেবের মোবাইলে একাধিকবার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।


আলমগীর হোসেন/এসএম

Print