ঈদের আগে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হওয়া নিয়ে শঙ্কা

জেলা করসপন্ডেন্ট
টাইম নিউজ বিডি,
১৯ আগস্ট, ২০১৮ ১৪:১৬:২৯
#

নাব্য সংকটে কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া ফেরি রুটে দেড় সপ্তাহ ধরে বাস-ট্রাক পারাপার প্রায় বন্ধ রয়েছে। এর প্রভাবে পারাপারের অপেক্ষায় থাকা যানবাহনের তীব্র জট সৃষ্টি হচ্ছে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও চাঁদপুর-হরিনা ফেরিঘাটেও।


এতে বরিশাল ও খুলনা বিভাগের ১৬ জেলাসহ পদ্মার দক্ষিণপারে থাকা ২৩ জেলার মানুষের যাতায়াত ও আসন্ন ঈদে এ অঞ্চলের মানুষের নিবিঘ্নিত বাড়ি ফেরা নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।


বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তারা বলছেন, লৌহজং পয়েন্টে ড্রেজিং চলছে। আজ রোববারের মধ্যেই পুরোপুরি চালু হবে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি চ্যানেল। তখন স্বাভাবিক হয়ে যাবে ৩ পয়েন্টের ফেরি পারাপার। তবে একথায় আস্থা রাখতে পারছেন না বিআইডব্লিউটিএর কর্মচারীরাই। তারা বলছেন, ড্রেজিংয়ের যে গতি, ঈদের আগে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হওয়া কঠিন।


এ মাসের শুরুতেই সংকট সৃষ্টি হয় কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া রুটে। পদ্মায় লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে দেখা দেয় নাব্য সংকট। যেখানে রো রো ও ডাম্ব ফেরি চলাচলের জন্যে অন্তত ৭ থেকে ৮ ফুট পানি দরকার সেখানে এ পয়েন্টে গভীরতা কমে দাঁড়ায় ৫ থেকে ৬ ফুটে।


শিমুলিয়া ঘাটে বিআইডব্লিউটিসি টার্মিনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট (টিএ) রফিকুল ইসলাম জানান, ‘১১-১২ দিন ধরে বন্ধ রয়েছে রো রো ও ডাম্ব ফেরিতে যানবাহন পারাপার। বর্তমানে কে টাইপ ও মিডিয়াম ফেরিতে ছোট ছোট গাড়ি পার করা হচ্ছে। তাও খুব সাবধানে পার হতে হচ্ছে চ্যানেল।’ আরেক টিএ শাহিন হোসেন বলেন, ‘মিডিয়াম ও কে টাইপ ফেরির স্বাভাবিক চলাচলে কমপক্ষে ৬ ফুট গভীরতা দরকার হয়। আমরা এসব ফেরিতে ভারি কোনো গাড়ি দিচ্ছি না।’


কাঁঠালবাড়ি ঘাটের ব্যবস্থাপক সালাম হোসেন বলেন, ‘এত কিছুর পরও প্রায়ই লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে আটকে যাচ্ছে মিডিয়াম ও কে টাইপ ফেরি। চরে আটকা পড়া এসব ফেরি টেনে নামাতে সেখানে রাখা হয়েছে টাগবোট। তাছাড়া চ্যানেলটি এতই সরু যে সেখানে একটি ফেরি আটকা পড়লেই বন্ধ হয়ে যায় পুরো রুট।’


বর্তমানে এ রুটে ছোট ছোট ৮টি ফেরি চলছে জানিয়ে শিমুলিয়া পয়েন্টের টিএ মিরাজ হোসেন বলেন, ‘বহরে থাকা ২১টি ফেরির ১৩টিই বর্তমানে বন্ধ। এতে রাজস্ব আয়ও অনেক কমে গেছে।’


সহকারী মহাব্যবস্থাপক খালিদ নেওয়াজ বলেন, ‘স্বাভাবিক সময়ে আমরা এ পয়েন্ট থেকে দিনে গড়ে ২৪শ’ থেকে ২৫শ’ গাড়ি পারাপার করি। যার মধ্যে ১৪-১৫শ’ ছোট গাড়ি, ৩শ’র মতো বাস এবং প্রায় সাড়ে ৭শ’ ট্রাক। ডাম্ব ও রো রো ফেরি বন্ধ থাকায় এখন মাত্র দেড় থেকে ২শ’র মতো ছোট গাড়ি পারাপার হচ্ছে। আগে এ পয়েন্টে দৈনিক ৩৫-৩৬ লাখ টাকা আয় হতো, এখন ৪-৫ লাখ টাকায় নেমে এসেছে।’


পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে স্বাভাবিক সময়ে দৈনিক ৪ হাজারের মতো যানবাহন পারাপার হতো। সেখানে এখন দিন-রাত মিলিয়ে ৬ থেকে ৭ হাজার যান পার করেও পরিস্থিতি সামাল দেয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।


চাঁদপুর-হরিনা ঘাটেও বেড়ে গেছে যানবাহনের চাপ। ঢাকা-বরিশাল রুটে চলাচলকারী সাকুরা পরিবহনের এক চালক জানান, ‘সবচেয়ে বেশি জটিলতায় পড়েছে নিয়মিত কাঁঠালবাড়ি হয়ে চলাচলকারী প্রায় ৩-৪শ’ বাস। এগুলোকে এখন প্রায় ১২৫ কিলোমিটার বেশি পথ পাড়ি দিয়ে পাটুরিয়া হয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।


জেড

Print