শরণার্থী জীবন কে চায়?

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
২৩ আগস্ট, ২০১৮ ১৫:৩০:৪৫
#

বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গা ঢলের এক বছর পূর্ণ হবে ২৫ আগস্ট শনিবার। গত বছরের শেষ থেকেই শোনা যাচ্ছিলো দ্রুতই প্রত্যাবাসিত হবে মিয়ানমারের এই জনগোষ্ঠী। কিন্তু সেই উদ্যোগে এতদিনেও দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি নেই মাঠ পর্যায়ে। এক বছর পর এখন কেমন আছেন তারা?


রোহিঙ্গা ঢল দেখিয়েছে বানের জলেরমতো কীভাবে ভেসে যায়-মানবতা। গত বছরের শেষ থেকে শুরু হওয়া সেই ঢল কখনো কমেছে, কখনো বেড়েছে।


গত এক বছর ধরে ঘাড়ের উপর বোঝা হয়ে থাকা ১০ লাখ মানুষকে সাধ্যমতো সাহায্য করছে বাংলাদেশ। সেই উদ্যোগে যুক্ত হয়েছে সরকারি বেসরকারি ও আন্তর্জাতিকসহ প্রায় শতাধিক সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান।


কুতুপালং এর পাশেই ১২৩ একর জমিতে নতুন তৈরি হওয়া এই ক্যাম্পটি বেশ গোছালো। এতে অন্য অনেকের সঙ্গে বাস করেন আলমগীর। কিছু আয় রোজগারের আশায় গত ছ'মাস ধরে ক্যাম্পে নিজের ঘরটির পাশেই মুদি দোকান দিয়ে বসেছেন তিনি।


তবে ক্যাম্পে অনেকেই আছেন যারা সারাটা দিনই বসে থেকে গল্প করে দিন পার করছেন। কারণ বাইরে গিয়ে কাজের যেমন অনুমতি নেই তেমনি ক্যাম্পে করারও কিছু নেই।


দিন মাস সপ্তাহ সবই চলছে ত্রাণের উপর নির্ভর করে। এসবের মাঝেও আছে নানা রকম অভিযোগ। একেতো ভাদ্রের গরম তার উপর পাহাড়ি এলাকা হওয়ায় নেমে গেছে পানির স্তর। পানি আনতে হচ্ছে দূর থেকে।


মগদের মুল্লুকে ঘটা মানবতার অবমাননার বিচার হবে সেই আশা নিয়ে দিন পার করছেন রোহিঙ্গারা।


নিজেদের ভূখণ্ড থাকার পরও নিজ দেশ থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গারা। গত এক বছর ধরে বাংলাদেশ এদের মৌলিক চাহিদা পূরণে সব কিছুই করেছে কিন্তু কে চায় শরণার্থী জীবন? এ কারনে এই সংকট সমাধানের একমাত্র উপায় নিরাপদ প্রত্যাবাসন।


এসএম

Print