জমি দখল করে পার্কে চলছে অসামাজিক কার্যকলাপ!

বেনাপোল প্রতিনিধি
টাইম নিউজ বিডি,
১০ অক্টোবর, ২০১৮ ১৭:৫৯:২১
#

যশোরের শার্শার উলাশী ও ঝিকরগাছার মির্জাপুরে গড়ে ওঠা নীল কুঠির ফ্যামিলি পার্কে চলছে নানা অসামাজিক কার্যলাপ। দিবালোকে এ অসামাজিক কাজ চললেও অজ্ঞাত কারণে নিরব ভূমিকা পালন করছে প্রশাসন।


পার্কে যারা ঘুরতে আসে তাদের অধিকাংশই স্কুল-কলেজ পড়ুয়া কোমলমতী শিক্ষার্থী। তাদের এসর অসামাজিক কার্যক্রম দেখে উদ্বিগ্ন ঘুরতে আসা অভিভাবকরাও। পাশাপাশি দাবি করছে, অবিলম্বে পার্কটি বন্ধ করার।


শার্শা উপজেলা থেকে ১০ কিলোমিটার দক্ষিণে ১২ বছর আগে ১০ বিঘা জমি নিয়ে গড়ে ওঠে নিল কুঠি ফ্যামিলি পার্ক। এলাকাবাসীর বিনোদনের জন্য তৈরী করা হয় পার্কটি। প্রথমে ঠিকঠাক চললেও বছর ঘুরতে না ঘুরতেই শুরু হয় অসামাজিক কার্যলাপ।


সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, স্কুল চলাকালীন সময় স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছেলে মেয়েরা জোড়ায় জোড়ায় বসে আছে। তাদের একান্ত সময় কাটানোর জন্য তৈরি করে দেওয়া হয়েছে ছোট ছোট খুপড়ি ঘর।


প্রতি ঘরে সময় কাটানোর জন্য ভাড়া নেওয়া হয় ঘন্টায় দুই হাজার টাকা। আর সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত ঘর ভাড়া নেওয়া হয় চার হাজার টাকা। পার্কের এক কর্মচারী বলেন, পার্ক হচ্ছে বিনোদনের জায়গা একটা পার্ক চালাতে অনেক খরচ এদিক সেদিক না হলে পার্ক চলবে কি করে।


হতদরিদ্র মহিলা খাইরুন (৫০) অভিযোগ করে বলেন, পার্কের মালিক মিলন মেম্বার প্রতিবছর লিজের টাকা দেয়ার কথা বলে তাদের কাছ থেকে জমি নিয়েছেন। কিন্ত আমাদেরকে কোন টাকা দিচ্ছেনা টাকা চাইলে তার বাহিনীর লোকজন দিয়ে হুমকি দিয়ে ও মারমিট করে।


জমির মালিক সাফিয়া (৪৮) জানান, পার্কের ভিতরে আমারও জমি আছে মিলন মেম্বার লিজের কথা বলে জমি নেয়। কিন্তু লিজের টাকা দেয় না। আমি এ ব্যাপারে অনেক জায়গায় বিচার দিয়েও বিচার পাইনি। লিজের টাকা চাইলে মিলন মেম্বার তার লোকজন দিয়ে ভয়ভীতি দেখায়।


পার্কের মালিক মিলন মেম্বার বলেন, পার্কের ভিতরে কোন অসামাজিক কার্যকলাপ হয় না। এখানে মাঝে মধ্যে স্কুল কলেজের ছেলে-মেয়েরা এসে গল্প গুজোব করে, এতে দোষের কি? আমি যাদের কাছ থেকে জমি লিজে নিয়েছি তিন চার জন বাদে সবাইকে ঠিকমতো টাকা পরিশোধ করি। কিছু লোক যারা আমার ভালো চায় না তারা আমার বিরুদ্ধে এসব গুজব ছড়াচ্ছে।


ঝিকরগাছা থানার অফিসার ইনচার্য কাজী কামাল হোসেন জানান, এ ব্যাপারে আমি অবগত ছিলাম না আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম। এখন জানতে পেরেছে যদি পার্কে কোন অনৈতিক কাজ হয় তাহলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর আমি এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয়ের সাথে কথা বলিছি। আমি চেষ্টা করবো যত দ্রুত সম্ভাব নির্দেশনা মোতাবেক প্রদক্ষেপ নেওয়ার জন্য।


ঝিকরগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি এবং জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কাছে আমি এবিষয়ে একটি অভিযোগ করেছি। নির্দেশনা পাওয়া মাত্র প্রদক্ষেপ নেওয়া হবে। এছাড়া কোন স্কুল কলেজগামী ছেলে মেয়ে যাতে ক্লাস টাইমে ড্রেস পরে পার্কে না যায় সেজন্য স্কুল কলেজের প্রধান শিক্ষকদের সাথে বিভিন্ন ক্যাম্পিং করা হবে।


নাসির/জেড


 


 

Print