নবীকে কটুক্তিঃ মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত নারীকে মুক্তি দিলো পাকিস্তান!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
৩১ অক্টোবর, ২০১৮ ১৮:০৯:৩৩
#

দীর্ঘ ৯ বছর কারাভোগের পর মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স:) কে নিয়ে কুটক্তি করায় মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত এক খ্রিস্টান নারীকে সাাজা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে পাকিস্তান।


আজ বুধবার পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টে বিচারকদের সমন্বয়ে গঠিত তিন সদস্যের একটি বেঞ্চ ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাতের অভিযোগে দণ্ডপ্রাপ্ত আসিয়া বিবিকে মুক্তি দেয়। তার বিরুদ্ধে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স:) ও কুরআন নিয়ে কুটক্তির অভিযোগ আনা হয়।


তবে পাকিস্তানের আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিশেষ করে ধর্মীয় গোড়ামি মুসলিমরা প্রথম থেকে আসিয়া বিবির মৃত্যুদণ্ড দাবি করে আসছিল।


ইতিমধ্যে আসিয়া বিবি অব্যাহতি পেলে দেশব্যাপী সহিংসতা ও বিক্ষোভ শুরু হবে বলে হুমকি দেয় তেহরিক-ই-লাব্বাইক (টিএলপি) দল। যার এর আগেও এই বিষয়ে পাকিস্তান জুড়ে সহিংসতা ছড়িয়ে দিয়েছিল।


এখানে উল্লেখ্য ২০১১ সালে রায়ের সময় আসিয়া বিবিকে সমর্থন করায় দুই জনকে হত্যা করা হয়। এদের মধ্যে একজন গভর্নর ও একজন পাকিস্তানের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মন্ত্রী।


৫৩ বছর বয়সী আসিয়া বিবি পাকিস্তানে ইথান ওয়ালী গ্রামের বাসিন্দা। তার বিরুদ্ধে দুই নারী ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ আনে। মূলত তাদের ঝগড়া করার সময় আসিয়া বিবি নবী ও কোরআনকে নিয়ে কটুক্তি করে।


তারপর তাকে গ্রেফতার করা হয় এবং ২০১০ সালে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া। দীর্ঘ ৯ বছর এই আইনে সংশোধনের দাবি এনে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়।


পাকিস্তানে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানা এবং এর বিচার প্রক্রিয়া খুবই স্পর্শকাতর বিষয়। বিশেষ করে এই অভিযোগে অবশ্যই মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়।


এমনকি এই বিষয় নিয়ে পাকিস্তানে সহিংসতা ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ঘটনাও ঘটেছে। বিশেষ করে ১৯৯০ সালে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের ইস্যুতে সহিংসতায় প্রায় ৭৪ জন নিহত হয়।


জেড

Print