সংঘাতে জোড়া খুন, জানেন-ই না ইসি সচিব

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১১ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:৩০:২১
#

আগারগাঁও থেকে মোহাম্মদপুর। সীমানা ধরলে লাগোয়া। আর মোহাম্মপুরের নবোদয় হাউজিং থেকে নির্বাচন ভবন, বড়জোর দুই কিলোমিটার।



শনিবার সকালে নবোদয় হাউজিংয়ের সামনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত হন ২ যুবক।


অথচ বিকেলে ব্রিফিংয়ে এসে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানালেন, এমন কোনো ঘটনা তিনি জানেন-ই না। সাংবাদিকদের কাছ থেকে মাত্রই শুনলেন।


মনোনয়নপত্র নিতে যাওয়ার সময় সকালে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের নবোদয় হাউজিংয়ের সামনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. সাদেক খানের সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে পিকআপ চাপায় দুই যুবক নিহত হন। নিহতরা হলেন, পথচারী সুজন (১৮) ও আরিফ (১৫)।


এই সহিংসতার বিষয়টি নজরে এনে সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চান, মনোনয়নপত্র বিতরণকে কেন্দ্র করে এক ধরনের নির্বাচনী প্রচারণা চলছে। এটি জনভোগান্তিও তৈরি করেছে। এসব বন্ধে আপনারা কি ব্যবস্থা নিয়েছেন?


জবাবে তিনি বলেন, ‘তফসিল ঘোষণার পর থেকেই নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা, মিছিল-মিটিং নিষিদ্ধ। কোনো দল বা ব্যক্তি যদি প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচারণা চালান, তা স্বাভাবিকভাবে আচরণবিধি লঙ্ঘন। আমরা ইতোমধ্যে সকল রিটার্নিং অফিসারকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছি। যারা আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’


এরপর সাংবাদিকরা ইসি সচিবকে জানান— মোহাম্মদপুরে সম্ভাব্য দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে দু’জন নিহত হয়েছেন। পরে স্বররাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, এ ঘটনার দায়-দায়িত্ব ইসির ওপর বর্তায়। এখন আপনার কি বলবেন?


জবাবে হেলালুদ্দীন বলেন, ‘এমন বিষয় (সংঘর্ষ) আমরা জানি না। আপনাদের কাছ থেকে মাত্রই শুনলাম। বিষয়গুলো আমাদের নজরে আসেনি, আমরা শুনিও নাই।’


নজরে আসলে কি করবেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের পক্ষেতো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রধান আইজিপিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ইতোমধ্যে নির্দেশনা দিয়েছেন— নির্বাচন ঘিরে যাতে কোথাও কোনো সহিংসতা না হয়। কেউ যেন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে প্রচার-প্রচারণা না চালান এবং যাতে কোনো ধরনের আচরণবিধি লঙ্ঘন না হয়, সেগুলো বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।’


ইসি সচিব বলেন, ‘আমরা আশা করব, যারা আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন, তারা যেন আচরণবিধি মেনে চলবেন। প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র নিতে এলে তাদের হাতে আচরণবিধির ফটোকপি দেয়া হবে। এরপরও কিছু ঘটলে রিটার্নিং অফিসার নির্বাচন কমিশনের পক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারবেন।’


আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রি নিয়ে ধানমন্ডি এলাকার জনদুর্ভোগ বিষয়ে আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ভোট একটি উৎসব। প্রচার-প্রচারণা, মনোনয়ন ফরম নেয়া, জমা দেয়া একটি নির্দিষ্ট সীমানায় হচ্ছে। এতে আচরণবিধি লঙ্ঘন হচ্ছে, এটা আমাদের কাছে প্রতীয়মান হচ্ছে না।’


এসএম

Print