হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’মুক্তি পাচ্ছে ১৬ নভেম্বর

বিনোদন ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ২৩:২৬:১০
#

আওয়ামী লীগ সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে নির্মিত ডকুফিল্ম ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’মুক্তি পাচ্ছে ১৬ নভেম্বর।



ওইদিন রাজধানীর স্টার সিনেপ্লেক্স, মধুমিতা সিনেমা হল, ব্লকবাস্টার সিনেমাস ও চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিনে একযোগে মুক্তি পাবে। এর একদিন আগে ৭০ মিনিট ব্যাপ্তির এই ডকুফিল্মটি ১৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় রাজধানীর স্টার সিনেপ্লেক্সে উদ্বোধনী প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে।


মঙ্গলবার সকালে সেন্টার ফর রিসার্চ এন্ড ইনফরমেশন (সি আর আই) আয়োজিত রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে এতথ্য জনানো হয়।


সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ডকুফিল্মটির প্রযোজনা সংস্থা সিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির বিন শামস, ডকুফিল্মটির পরিচালক পিপলু খান ও ছবিটির পরিবেশক গাউসুল আজম শাওন ও শিবু কুমার শীল। সেন্টার ফল রিচার্স অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এর পক্ষে ডকুফিল্মটি প্রযোজন করেছেন রেদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ও নসরুল হামিদ বিপু।


পরিচালক পিপলু খান বলেন, এই ডকুফিল্মে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনাকে উপস্থাপন করা হয় নি। এসবের বাইরেও তিনি একজন সাধারণ মানুষ, বঙ্গবন্ধু কন্যা সেটিকে সবার সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। যার কারণে শেখ হাসিনার চারপাশের মানুষগুলোও ছবিটিতে রয়েছেন চরিত্র হিসেবে।


কাজের সর্বোচ্চ স্বাধীনতা পেয়েছেন উল্লেখ করে পিপলু খান বলেন, শেখ হাসিনাকে আমি যেভাবে দেখাতে চাই, সেভাবেই কাজটা করেছি। কোনো নিয়মনীতির ছক তৈরি করে দেননি তিনি। যার ফলে কাজটা আমার মনের মতো হয়েছে। যেহেতু শেখ হাসিনা একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সে কারণে ইতিহাসের নানা ঘটনা, রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট, ক্ষমতার পালাবদল, ব্যক্তি ও রাজনৈতিক জীবনের নানা অভিজ্ঞতা এবং দেশের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে তার দৃষ্টিভঙ্গিসহ প্রতিটি বিষয়ে গবেষণা করতে হয়েছে। কাজটি চ্যালেঞ্জিং বলেই পাঁচ বছর সময় লেগেছে।


কাজের প্রাথমিক প্রস্তুতির বিষয়ে তিনি বলেন, ১৪ পৃষ্ঠার একটি কনসেপ্ট পেপার ও কিছু সঙ্গীত- এটাকে সঙ্গী করেই কাজটা শুরু করি। এরপর প্রধানমন্ত্রীর দৈনন্দিন কাজের ফাঁক গলে সময় বের করে শুটিং করা হয়েছে। যার কারণে এই দীর্ঘ সময় লেগেছে কাজটি শেষ করতে। আশা করছি, ছবিটি সবার ভালো লাগবে। যারা শেখ হাসিনাকে ভালোবাসেন বা তাকে যারা ভালোবাসেন না- তাদের প্রত্যেককে তিনি ছবিটি দেখা অনুরোধ করেন।


সাব্বির বিন শামস বলেন, আমরা একজন শেখ হাসিনাকে দেখতে পাই দেশের উন্নয়নের রূপকার হিসেবে। যিনি কিনা বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজগুলোকে সম্পন্ন করছেন। তার বাইরের একজন শেখ হাসিনা এ চলচ্চিত্রে উঠে এসেছেন।


গাউসুল আজম শাওন বলেন, এটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর নির্মিত কোনো প্রামাণ্যচিত্র নয়। এটা বঙ্গবন্ধু কন্যার উপর নির্মিত চলচ্চিত্র। যাতে ৭৫- এর আগে ও পরের শেখ হাসিনাকে সবাই জানতে পারবেন।


ডকুফিল্মটিতে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার আবেগঘন কণ্ঠ আর দৃশ্যায়নে ফুটে উঠেছে, বঙ্গবন্ধুকে ১৯৭৫ সালে নৃশংস হত্যার পর বিষাদপূর্ণ সময় ও দুই বোনের নির্বাসিত জীবনসংগ্রামের চিত্র। শেখ হাসিনা কখনও বঙ্গবন্ধু কন্যা, কখনো জননী, কখনো বোন, কখনো গণমানুষের ত্রাতা রূপের বিষয়টিও তুলে ধরা হয়েছে এই প্রামাণ্যচিত্রে।


আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) ও অ্যাপেলবক্স ফিল্মসের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছে ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল' চলচ্চিত্রটি। এর চিত্রগ্রহণ করেছেন সাদিক আহমেদ। সম্পাদনা করেছেন নবনীতা সেন এবং সঙ্গীতায়োজনে সঙ্গীত পরিচালক দেবজ্যোতি মিশ্র।


এসএম

Print