শান্তিপূর্ণ প্রাণের মেলায় আঘাত করে অশান্তি সৃষ্টি করল: রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ২১:৩৪:২৭
#

সরকারের নির্দেশে বিনা উসকানিতে পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর আক্রমণ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ। তিনি বলেন, “শান্তিপূর্ণ প্রাণের মেলায় আঘাত করে তারা অশান্তি সৃষ্টি করল।”


আজ (১৪ নভেম্বর) বুধবার বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষের পর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ সমাবেশে রিজভী এই অভিযোগ করেন।


পুলিশের হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে রিজভী বলেছেন, “শান্তিপূর্ণ প্রাণের মেলায় আঘাত করে তারা অশান্তি সৃষ্টি করল। আমাদের নানাভাবে উসকানি দিয়ে তারা শান্তি নষ্ট করতে চায়। তারপরও আমরা বিশৃঙ্খলা করব না। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে গণতন্ত্র রক্ষা আর খালেদা জিয়ার মুক্তি।”


বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, “আমরা শান্তির পক্ষে, আমরা স্বস্তির পক্ষে, আমরা ন্যায়ের পক্ষে। আমরা কোনো অন্যায় করতে পারি না। তাই নেতাকর্মীদের আমি বলব, আপনার রাস্তায় মিছিল করবেন না, কোনো স্লোগান দেবেন না, রাস্তায় গাড়ি চলবে, আপনারা ফুটপাতে দাঁড়াবেন।”


রিজভী বলেন, “বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মনোনয়ন ফরম কিনতে গত তিন দিন বিএনপির কার্যালয়ে আসছে। এর মধ্যে কোনো বিশৃঙ্খল ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু আজ কী কারণ ছিল, পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের বিনা কারণে রক্ত ঝরিয়েছে। তারা আজ কাতরাচ্ছে, আর্তনাদ করছে।”


আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে উদ্দেশ করে রিজভী বলেন, “আপনারা কারো নির্দেশে কাজ করবেন না। আপনারা এ দেশের কারো না কারো ভাই, কারো সন্তান। আমাদেরই আত্মীয় আপনারা। তাই কারো স্বার্থরক্ষা করতে গিয়ে গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে যায় এমন কাজ করবেন না।”


রিজভী বলেন, “আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আপনাদের শান্ত হতে বলেছেন। আপনারা রাস্তা ছেড়ে ফুটপাতে বসে পড়ুন। এটা তারেক রহমানের নির্দেশ। সরকারের কোনো উসকানিতে পা দেবেন না। আপনারা শান্ত হোন।”


আজ দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়েছে। পুলিশের গুলি, কাঁদানে গ্যাসের শেল ও লাঠিপেটায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। নেতাকর্মীদের পাল্টা হামলায় বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। দুপুর ১টার দিকে এই সংঘর্ষ শুরু হয়। পুরো নয়াপল্টন রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। নেতাকর্মীরা পুলিশের দুটি গাড়ি ভাঙচুর করে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে।


এমবি 

Print