মিত্রদের সঙ্গে আ. লীগের সমঝোতা শেষ সময়ে

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ১৭:১১:৫৩
#

আওয়ামী লীগ ৩০০ আসনেই নিজ দলের প্রার্থী বাছাই করছে। চলতি সপ্তাহেই এই প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হতে পারে। এরপর ১৪ দলের শরিক এবং জাতীয় পার্টি, যুক্তফ্রন্টসহ অন্য মিত্রদের সঙ্গে আসন সমঝোতায় বসবে। বিরোধী রাজনৈতিক জোটের প্রার্থী তালিকা দেখে এটা চূড়ান্ত হবে। এ কারণে জোটের সঙ্গে আসন সমঝোতা মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ পর্যন্ত গড়াতে পারে।


শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত যাতে নিজ দলের প্রার্থী পরিবর্তন করা যায়, সে জন্য প্রত্যেক মনোনীত প্রার্থীর কাছ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাহারের ফরমে সই নিয়ে রাখবে আওয়ামী লীগ, যা দল থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দিলেই মনোনয়ন বাতিল হয়ে যাবে।


আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্রগুলো বলছে, দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের ৩০০ আসনের প্রার্থীর খসড়া তালিকা করে রেখেছেন। ভাবতে হচ্ছে জোট ও মিত্রদের আসন নিয়ে। ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের আসন বণ্টন দেখে আওয়ামী লীগ নিজ জোট ও মিত্রদের আসন চূড়ান্ত করবে।


কমবে ১৪ দলের শরিকদের
আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোট সূত্র বলছে, এবার জোটের শরিকদের আসন কমছে—এমন একটা ধারণা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছে। আসন ছাড় দেওয়ার মনোভাব রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এর মূল কারণ বিরোধীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট এবং ইসলামিক ফ্রন্ট, জাকের পার্টি, ইসলামী ঐক্যজোটসহ কিছু ধর্মভিত্তিক দলের সরকারি জোটে অন্তর্ভুক্ত হওয়া।


১৪ দলের একজন শীর্ষ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ১৪ দলের শরিকদের সঙ্গে আসন ভাগাভাগির বিষয়ে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বের কোনো উদ্বেগ নেই। তবে জাতীয় পার্টিকে সমঝোতায় আনতে বেগ পেতে হতে পারে। আর যুক্তফ্রন্টের আকার শেষ পর্যন্ত কী দাঁড়ায়, সেটাও ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ, যুক্তফ্রন্টকে সরকারি দলের নিয়ন্ত্রণে নেওয়া হয়েছে বিএনপির নেতা ও তাঁদের নেতৃত্বাধীন জোটের শরিকদের ভাগিয়ে আনার লক্ষ্যে। ফলে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার পরও মনোনয়নবঞ্চিত অনেকেই যুক্তফ্রন্টে ভিড়তে পারেন—এমন বিবেচনা আছে সরকারি জোটের। সে ক্ষেত্রে আসন সমঝোতার বিষয়টি ২৯ নভেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন পর্যন্ত গড়াতে পারে।


যদিও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, আওয়ামী লীগ ৩০০ আসনে প্রার্থী বাছাইয়ে কাজ করছে। প্রায় অর্ধেক আসন নিয়ে আলোচনা হয়ে গেছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে দল ও জোটের আসন চূড়ান্ত হয়ে যাবে।


২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনে ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টি ছয়টি এবং জাসদ পাঁচটি আসন পায়। তরীকত ফেডারেশন ও আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর জাতীয় পার্টি (জেপি) দুটি করে আসন পায়। এবার এসব দলের আসন কমতে পারে। ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা নড়াইল-২ আসন থেকে নির্বাচন করার জন্য আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। ফলে এই আসনের বর্তমান সাংসদ ওয়ার্কার্স পার্টির হাফিজুর রহমানের মনোনয়নপ্রাপ্তি অনিশ্চিত। জাসদ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যাওয়ার কারণে তাদেরও শক্তিমত্তা কমেছে বলে মনে করছে আওয়ামী লীগ। তরীকত ফেডারেশন ও জেপিও একটি করে আসন পেতে পারে। এর বাইরে গণতন্ত্রী পার্টি ও ন্যাপ একটি করে বা দুই দলের একটিকে আসন দেওয়ার পরিকল্পনা আছে।


তবে ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, তাঁর ধারণা, ১৪ দলের আসন কমবে না। বিএনপি সংসদে এলে তাদের মোকাবিলা করার জন্য ১৪ দলের নেতাদের লাগবে। জাতীয় পার্টি বা অন্যরা ভূমিকা রাখতে পারবে না।


বাড়বে জাপার, বিশেষ বিবেচনায় যুক্তফ্রন্ট
জাতীয় পার্টি (জাপা), যুক্তফ্রন্ট ও ধর্মভিত্তিক কিছু দলের জন্য ৬০টি আসন বিবেচনা করছে আওয়ামী লীগ। অর্থাৎ সব মিলিয়ে শরিক ও মিত্রদের জন্য আওয়ামী লীগ সর্বোচ্চ ৭০টি আসন ছাড়তে পারে। এর মধ্যে বর্তমান সংসদে জাপার ৩৬ জন সাংসদ আছেন। এবার দলটি ৮০ আসনের জন্য দর–কষাকষি করছে। অর্ধেক পেতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্র মনে করছে।


আওয়ামী লীগের একজন দায়িত্বশীল নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, শরিক বা মিত্রদের শীর্ষ নেতা না হলে আওয়ামী লীগের ভালো অবস্থা আছে—এমন আসনে ছাড় দেওয়া হবে না। বিরোধীদের শক্ত অবস্থান আছে এমন আসনগুলোতেই মিত্রদের ছাড় দেওয়া হবে। তবে বি চৌধুরীর যুক্তফ্রন্ট বিএনপির কোনো বড় নেতাকে আনতে পারলে সেটা বিশেষভাবে বিবেচনা করা হবে।


জরিপ দেখে দলীয় তালিকা
আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক সূত্র বলছে, কোন আসনে কার কী অবস্থা তা নিয়ে এর আগে বিভিন্ন সংস্থাকে দিয়ে চারটি জরিপ করা হয়। এসব জরিপের ফল পরবর্তী সময়ে আবার হালনাগাদ করা হয়। কিন্তু এসব জরিপে সঠিক চিত্র উঠে এসেছে কি না, এই নিয়ে কিছুটা সন্দেহ তৈরি হয়। এরপর বিদেশি দুটি পেশাদার প্রতিষ্ঠান দিয়ে আলাদা জরিপ করা হয়। এক প্রতিষ্ঠানের তথ্য অন্যটিকে জানানো হয়নি। এসব জরিপে বর্তমান সাংসদের অবস্থান, নতুন কার অবস্থা ভালো, প্রতিপক্ষ হিসেবে কে শক্তিশালী, জোটের শরিকদের অবস্থান কী—তা দেখা হয়েছে। সব কটি জরিপের ফল পর্যালোচনা করে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩০০ আসনের একটা খসড়া তালিকা করেছেন।


আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সদস্যদেরও জরিপের ফলাফল সরবরাহ করা হয়। তাঁরাও পর্যালোচনা করছেন। সংসদীয় বোর্ডের কয়েকটি বৈঠকও হয়েছে। ইতিমধ্যে রাজশাহী, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আরও দুটি বৈঠক করলে আনুষ্ঠানিক তালিকা প্রণয়ন করা সম্ভব হবে বলে বোর্ডের সদস্যরা মনে করছেন।


আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে ৪ হাজার ২৩ জন ফরম সংগ্রহ করেছিলেন। তাঁদের জমা দেওয়া ফরমের সঙ্গে মনোনয়ন না পেলে প্রত্যাহারে বাধ্য থাকবেন—এই অঙ্গীকারনামাও আছে। এ ছাড়া চূড়ান্ত মনোনয়নের চিঠি দেওয়ার সময়ও প্রত্যাহারের ফরমে সই রেখে দেওয়া হবে।


আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের গত শুক্রবার সাংবাদিকদের বলেছেন, দু-তিন দিনের মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হবে। এক সপ্তাহের মধ্যে জোটের সঙ্গে আসন ভাগাভাগির কাজ শেষ হবে। সূত্র: প্রথম আলো।


এসএম

Print