জামায়াত ও হেফাজতে ইসলামকে রুখতে বাংলাদেশ সরকারকে আহ্বান

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
০১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৪:৪৮:৫২
#

মার্কিন কংগ্রেসে জামায়াতে ইসলামী, ইসলামী ছাত্রশিবির ও হেফাজতে ইসলামের মতো মৌলবাদী সংগঠনগুলো ধর্মনিরপেক্ষ ও গণতন্ত্রের জন্য হুমকি উল্লেখ করে বাংলাদেশ সরকারকে তাদের রুখে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে একটি বিল উত্থাপন করা হয়েছে।  


ইন্ডিয়ানা রাজ্যের রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান জিম ব্যাঙ্কস এবং হাওয়াইয়ের ডেমোক্রেট কংগ্রেসওম্যান টুলসি গ্যাবার্ড গত ২০ নভেম্বর এই প্রস্তাব করেন। পরে প্রস্তাবটি হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।


‘বাংলাদেশে সক্রিয় ধর্মীয় গোষ্ঠীগুলোর গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার প্রতি হুমকি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ’শিরোনামের এই প্রস্তাবে নির্বাচন ঘিরে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বিধান এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতেও বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।


বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) জানিয়েছে, মার্কিন কংগ্রেসের দাফতরিক ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, পরে প্রস্তাবটি রেজ্যুলেশন ১১৫৬ হাউজ ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটিতে রেফার করা হয়েছে।


বিলে ইউনাইটেড স্টেট এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট (ইউএসএইড) ও মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরকে জামায়াতে ইসলামী, ইসলামী ছাত্রশিবির ও হেফাজতে ইসলাম’সহ মৌলবাদী সংগঠনের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত সকল গ্রুপের সঙ্গে সব ধরনের অংশীদারিত্ব ও তহবিল ব্যবস্থাপনা বন্ধ করার আহ্বান জানানো হয়েছে।


এতে বলা হয়, বাংলাদেশে বিগত নির্বাচনের সময় বিএনপি, জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবির ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করে। যার ফলে ২০১৩ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৪ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ৪৯৫টি হিন্দু বাড়ি ধ্বংস করা হয়। ৫৮৫টি দোকানে হামলা ও লুট এবং ১৬৯টি উপাসনালয় ভাংচুর করা হয়।


জামায়াতে ইসলামীর কর্মীরা সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশ ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার সঙ্গে জড়িত। আগামী ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে উল্লেখ করে বিলে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের লক্ষ্যে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের অনুরোধে সাড়া দিতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।  


এমবি  

Print