আপিলেও যাদের মনোনয়ন বাতিল

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
০৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৯:৪৯:৪৩
#

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া ৫৪৩ জন প্রার্থীর প্রার্থিতা ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) আপিল শুনানি চলছে।  


আজ (০৬ ডিসেম্বর) বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিলের শুনানি শুরু হয়। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন কমিশন রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন (ইসি) ভবনের দশম তলায় স্থাপিত এজলাসে আপিল শুনানি চলছে।


চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের নবাব মো. শামছুল হুদার আপিল শুনানি দিয়ে শুরু হয়। আপিলেও তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল করে নির্বাচন কমিশন। এছাড়া এদিন অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে বেশ কিছুর প্রার্থীর মনোনয়নপত্র।    


ঢাকা-১ আসনে মো. আইয়ুব খান, ঢাকা-১৪ আসনে সাইফুদ্দিন আহমেদ, কুমিল্লা-২ মো. সারওয়ার হোসেন, কুমিল্লা-৪ মাহবুবুল আলম, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে এস এম খলিলুর রহমান (স্বতন্ত্র), বগুড়া-৩ আসনে মো. আব্দুল মুহিত, বগুড়া-২ মো.আবুল কাশেম, বগুড়া-৪ আসনে আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম ও অধ্যাপক মো. জাহিদুর রহমান, বগুড়া-৭ মো. সরকার বাদল ও মো. আব্দুর রাজ্জাক, জামালপুর-৪ মোহা.মামুনুর রশিদ, মাগুড়া-২ খন্দকার মেহেদী আল মাসুদ, নড়াইল-১ শিকদার মোহাম্মদ শাহাদাত, নওগাঁ-২ আব্দুর রউফ মান্নান, নওগাঁ-৪ আসনে মো. আফজাল হোসেন, নওগাঁ-৫ মো.নজমুল হক, নাটোর-১ আসনে শ্রী বীরেন্দ্রনাথ সাহা, নাটোর-২ রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, নাটোর-৪ ডিএম রনি পারভেজ আলম ও শান্তি রিবারুর প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে।


এছাড়া ময়মনসিংহ-২ আসনে মো. এমদাদুল হক, ময়মনসিংহ-৪ আসনে আবু সাঈদ মহিউদ্দিন, ময়মনসিংহ-১০ মো.হাবিবুল্লা, নেত্রকোনা-১ আসনে মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আখতার হোসেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনে মো. বশিরউল্লাহ, কিশোরগঞ্জ-৩ আসনে ড. মিজানুল হক, হবিগঞ্জ-২ আসনে মো. জাকির হোসেন, মৌলভীবাজার-২ মহিবুল কাদির চৌধুরী, খুলনা-২ আসনে এস এম এরশাদুজ্জামান, সাতক্ষীরা-১ আসনের এস এম মুজিবর রহমান ও নুরুল ইসলাম, লক্ষীপুর-২ আবুল ফয়েজ ভুইয়া, ফেনী-৩ আসনে হাসান আহমদ, ফেনী- ১ মো. নূর আহাম্মদ মজুমদার, নোয়াখালী-৩ এইচ আর এম সাইফুল ইসলাম, চট্টগ্রাম-৫ আসনের প্রার্থী মীর নাসির উদ্দিন এবং বাগেরহাট-৪ আমিনুল ইসলাম প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে।


আর ঝিনাইদহ-১ আসনের বিএনপির প্রার্থী মোঃ আব্দুল ওয়াহাব, নীলফামারী-৩ মো. ফাহমিদ ফয়সাল চৌধুরী, নীলফামারী-৪ মো. আমজাদ হোসেন,আখতার হোসেন বাদল ও মিনহাজুল ইসলাম, গাইবান্ধা-২ মো.মকদুবর রহমান, গাইবান্ধা-৩ মো. মনজুরুল হক, লালমনিরহাট-১ আবু হেনা মো.এরশাদ হোসেন, লালমনিরহাট-৪ মো. জাহাঙগীর আলম, রাঙামাটির স্বতন্ত্র প্রার্থী অমর কুমার দে ও খাগড়াছড়ি আসনের আব্দুল ওয়াদুদ ভূইয়ার প্রার্থিতা স্থগিত করা হয়েছে।


প্রার্থিতা বাতিলের তালিকায় আরও রয়েছে কুড়িগ্রাম-১ আসনের মো. ওসমান গণি, কুড়িগ্রাম-৪ মো.আবুল হাসেম, রংপুর-৫ মমতাজ হোসেন, যশোর-২ মোছা.সাবির সুলতানা ও হাজী মো.সহিদুল হোসেন, সিরাজগঞ্জ-২ ইকবাল হাসান মাহমুদ, সিরাজগঞ্জ-৩ সাইফুল ইসলাম শিশির।


ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানিয়েছেন, মোট ৫৪৩টি আপিল আবেদন পড়েছে।


আগামীকাল ৭ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দিনে ১৬১ থেকে ৩১০ নম্বর আবেদনের শুনানি হবে। আর ৮ ডিসেম্বর শেষ দিন শুনানি হবে ৩১১ থেকে ৫৪৩ নম্বর আবেদনের।


প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে শুনানি শুরু হয়ে নির্ধারিত আবেদন নম্বর শেষ না হওয়া পর্যন্ত চলবে।


মনোনয়নপত্র বাছাইকালে ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়নপত্র বৈধ ও ৭৮৬টি অবৈধ বলে ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এগুলোর মধ্যে বিএনপির ১৪১টি, আওয়ামী লীগের ৩টি এবং জাতীয় পার্টির ৩৮টি মনোনয়নপত্র রয়েছে। এছাড়া, স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ৩৮৪টি।


৩৯টি দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলে এবার ৩০০ সংসদীয় আসনে ৩ হাজার ৬৫টি মনোনয়নপত্র জমা দেয়। এর মধ্যে দলীয় মনোনয়নপত্র জমা পড়ে মোট ২ হাজার ৫৬৭টি, আর স্বতন্ত্র ছিল ৪৯৮টি। আগামী ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময়। ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ। আর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ৩০ ডিসেম্বর।


এমবি  

Print