ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে মহাকবি হাফিযের কবিতা সন্ধ্যা

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
২৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০২:০৯:৪০
#

ইরানের ঐতিহ্যবাহী ‘শাবে ইয়ালদা’ (বছরের দীর্ঘতম রজনী) উপলক্ষে ‘মহাকবি হাফিজের কবিতা সন্ধ্যা’ অনুষ্ঠান হয়েছে। 


ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্যোগে শুক্রবার (২১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্র মিলনায়তনে ‘মহাকবি হাফিজের কবিতা সন্ধ্যা’ হয়। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকাস্থ ইরানি রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ রেযা নাফার ও বিশিষ্ট কবি আসাদ চৌধুরী।


বক্তারা বলেন, পারস্যের কবি হাফিজ শিরাজি ছিলেন অমর কবি। দিওয়ানে হাফিজ ফারসি গ্রন্থগুলোর মধ্যে সর্বাধিক পঠিত গ্রন্থ যদি নাও হয়ে থাকে তবে এতে কোন সন্দেহ নেই যে, ফারসি যেকোন গ্রন্থের চেয়ে দিওয়ানে হাফিজ সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে। এখনও প্রতিবছর কবি হাফিজের বিভিন্ন গ্রন্থের নতুন নতুন সংস্করণ বাজারে আসে এবং খুব স্বল্প সময়ের মধ্যে তা বিক্রি হয়ে যায়। ইরানে এমন কোন শিক্ষিত পরিবার নেই যাদের ঘরে হাফিজের কাব্যগ্রন্থ নেই। হাফিজের কবিতায় শেখ সাদি, ওমর খইয়াম ও মৌলানা জালাল উদ্দিন রুমি-পারস্যের এই তিন মহাকবিরই সাহিত্যকর্মের স্বাদ পাওয়া যায়।


তিনি ইরানের এই তিন মহাকবির সাহিত্যকর্মের নির্যাস থেকে নতুন এক সাহিত্য জগত তৈরি করেছেন।


বক্তারা বলেন, বাংলা সাহিত্যেও ইরানের মহাকবি হাফিজের প্রভাব রয়েছে। বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম দিওয়ানে হাফিজ অনুবাদ করে বাংলা সাহিত্যকে আরো সমৃদ্ধ করেছেন।


বক্তারা আরও বলেন, যে রাতটি উপলক্ষে আজকের এই কবিতা সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়েছে সেটি হলো বছরের দীর্ঘতম রাত। যে রাতটি কল্যাণময় রাত হিসাবে ইরানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে হাজার বছর আগে থেকে আনন্দ উৎসব উদযাপিত হয়ে আসছে। কেননা এ রাতেই আলোর কাছে আধার পরাস্ত হয়েছে। এ রাত থেকেই মানবজাতির জন্য সুদিনের পালা বইতে শুরু করে বলেও মনে করা হয়। ইরানের অনেক কবি সাহিত্যিকের গ্রন্থেও এই রাতের গুরুত্ব তুলে ধরা হয়েছে।


অনুষ্ঠানে কবি হাফিজের ওপর স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন বাংলাদেশের বিশিষ্ট কবি হাসান হাফিজ। এতে আরো কবিতা আবৃত্তি করেন, কবি আসাদ চৌধুরী, শিহাব সরকার, হাসান হাফিজ ও শাহ নেওয়াজ তাবিব। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কালচারাল কাউন্সেলর ড. সাইয়্যেদ মাহদী হোসেইনী ফায়েক।


অনুষ্ঠানে ফারসি ‘শাবে ইয়ালদা’ অর্থাৎ (বছরের দীর্ঘতম রজনী) ও মহাকবি হাফিযের উপর কয়েকটি প্রামাণ্যচিত্র দেখানো হয়।


এমবি 


 

Print