বেরোবির আবাসিক হল অনাবাসিকদের দখলে

রংপুর প্রতিনিধি
টাইম নিউজ বিডি,
০৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৯:১৫:৪৫
#

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও শহীদ মুখতার ইলাহী হল অনাবাসিকদের দখলে থাকায় বৈধভাবে বরাদ্দ পাওয়া শিক্ষার্থীরা তাদের সিটে উঠতে পারছেনা।


হল প্রশাসন দফায় দফায় অনাবাসিকদের হল ছাড়ার নির্দেশ দিলেও তা মানছে না অনাবাসিকরা। এতে, হলের ফান্ড শুন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। ফলে, ৪/৫ মাস থেকে বেতন বঞ্চিত আছে হলের কর্মচারীরা।


জানা যায়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য ৩টি আবাসিক হল। শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে কোনো সমস্যা না থাকলেও দীর্ঘদিন থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও শহীদ মুখতার ইলাহী হলে অকল্পনীয় নৈরাজ্য বিরাজ করছে। ইতোপূর্বে রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় হলের অধিকাংশ বৈধ শিক্ষার্থীকে বিভিন্নভাবে বের করে দেয়া হয়েছে। এরপর আর বৈধভাবে হলে উঠতে পারেনি কোনো শিক্ষার্থী।


সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ৭ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু হল এবং একই বছরের ২৮ অক্টোবর শহীদ মুখতার ইলাহী হল উদ্বোধন করা হয়। ওই বছর পুরো মেধার ভিত্তিতে দুই হলে প্রায় ৭শ’ শিক্ষার্থীকে আবাসিকতার সুযোগ দেয়া হয়। এরপর থেকেই হলে বিশৃংখলা সুষ্টি করে বৈধ শিক্ষার্থীদের মারধরসহ বিভিন্নভাবে হল থেকে বের করে দেয় কতিপয় ছাত্রনেতা। তারপর দীর্ঘসময় অতিক্রান্ত হলেও নতুন করে আসন বরাদ্দ দেয়নি হল প্রশাসন।


খাতা-কলমে দুই হলে প্রায় ৪শ’ আসন ফাঁকা থাকলেও বাস্তবে আসন সংখ্যার চেয়ে ওই দুই হলে অবস্থানকারীর সংখ্যা দ্বিগুন। সবশেষ গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে শহীদ মুখতার ইলাহী হলে প্রায় ৫০ জন শিক্ষার্থীকে আসন বরাদ্দ দেয়া হয়। তবে, অনাবাসিক শিক্ষার্থীরা আসন ছেড়ে না দেয়ায় নতুনভাবে আবাসিকতার সুযোগ পাওয়া শিক্ষার্থীদের অধিকাংশই হলে উঠতে পারেনি। বর্তমানে ওই হলের মোট ২শ’৪০টি আসনে ১শ’৫০ জন শিক্ষার্থী বৈধভাবে অবস্থান করছে।


বঙ্গবন্ধু হল সূত্রে জানা যায়, ওই হলে ৩শ’৫৫টি আসনের মধ্যে মাত্র ৩২ জন বৈধভাবে অবস্থান করছেন। আর নতুন করে বরাদ্দ দেয়া ৬৯ জনের মধ্যে ভর্তি হয়েছেন ২৩ জন। শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, হলে উঠতে হল প্রশাসনের কোনো অনুমতির দরকার হয়না। কয়েকজন ছাত্রনেতার আনুকূল্যে থেকে আসন প্রতি নির্দিষ্ট পরিমাণ চাঁদা দিলেই হলে থাকার ব্যবস্থা হয়ে যায়।


বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা জানান, তারা ভর্তির সময় আবাসিক ফি জমা দিয়েও আবাসিক সুবিধা পাচ্ছেননা। অতিদ্রুত হলে নতুন করে আসন বরাদ্দের দাবি জানান তারা। এদিকে, হলগুলোতে বৈধ শিক্ষার্থী কমে যাওয়ায় হলের ফান্ড শুন্য হয়ে গেছে। এতে, ৪/৫ মাস থেকে বেতন বঞ্চিত রয়েছে প্রায় ২৫ জন কর্মচারী। বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।


এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের কর্মচারী বেল্লাল হোসেন বলেন, হল থেকে যে বেতন দেয় তার উপর আমার পরিবার নির্ভরশীল। দীর্ঘ ৪ মাস থেকে বেতন না পাওয়ায় আমার পরিবারকে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় হল প্রশাসন যদি এ ব্যাপারে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করে তাহলে আমার জন্য অনেক ভালো হয়।


এ বিষয়ে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট (চলতি দায়িত্ব) তাবিউর রহমান প্রধান বলেন, যাদের মাস্টার্স পরীক্ষা শেষ হয়েছে অথবা ছাত্রত্ব নেই তাদেরকে হল ছাড়ার জন্য ইতোপূর্বে তিনবার নোটিশ দেয়া হয়েছে। কিন্তু, মাত্র ২০ জন শিক্ষার্থী এ নির্দেশনা মানলেও বাকিরা অবৈধভাবে হলে অবস্থান করছে। তিনি আরও বলেন, গত সপ্তাহে সর্বশেষ একটি নোটিশ দেয়া হয়েছে। সেখানে ৭ দিনের মধ্যে অনাবাসিকদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যারা এ নির্দেশ অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


শহীদ মুখতার এলাহী হলের প্রভোস্ট ফেরদৌস রহমান জানান, অনাবাসিকদের কারণে নতুন করে বরাদ্দ দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা। ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের স্বদিচ্ছা ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের যথাযথ পদক্ষেপ ছাড়া এ সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়। তিনি আরও বলেন, অনাবাসিকদের কারণে দীর্ঘ ৫ মাস থেকে হলের কর্মচারীদের বেতন দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা।


জেড


 


 

Print