‘দেশের নাটকের কাজে অন্যরকম তৃপ্তি থাকে’

বিনোদন ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
০৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৬:৩৬:৩৮
#

ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি। ৫২’র ভাষা আন্দোলনে সালাম, জব্বার ও বরকতসহ অনেকের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের এই বাংলা ভাষা। ২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এই ভাষাকে নিয়ে আমি গর্ভবোধ করি। বাংলা আমার প্রানের ভাষা-নিজের মাতৃভাষা ভাষা নিয়ে এভাবে অনুভূতির কথা জানালেন জনপ্রিয় টিভি অভিনেত্রী দীপা খন্দকার। তিনি আরো বলেন, আমাদের নতুন প্রজন্ম এখন বিভিন্ন সংস্কৃতিতে মগ্ন। আমি মনে করি, সবার আগে নিজের দেশ ও ভাষাকে প্রাধান্য দিতে হবে। অন্য ভাষায় কথা বলাতে কোনো গৌরব নেই।


সুন্দর করে বাংলা ভাষা বলার মধ্যেই আনন্দ থাকে। এদিকে দীপা মানেই বিশেষ দিবসের নাটক। এবার ভাষা দিবসের দুটি নাটকে এই অভিনেত্রী অভিনয় করেছেন বলে জানান। আজ বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচার হবে তার অভিনীত ‘চিঠি’ শিরোনামের একটি খন্ড নাটক। এটি রচনা করেছেন শফিকুর রহমান শান্তনু। প্রয়োজনায় ঈমাম হোসেন। ভাষা দিবেস এনটিভিতে প্রচার হবে তার অভিনীত ‘আদর্শ লিপি’ শিরোনামের আরো একটি ভাষার নাটক। মনি হায়দারের রচনায় নাটকটি নির্মাণ করেছেন হাসান রেজাউল।


বিশেষ দিবসের নাটকে কাজ করা প্রসঙ্গে এই অভিনেত্রীর ভাষ্য, দেশের নাটকের কাজে অন্যরকম তৃপ্তি থাকে। এসব নাটকে অভিনয় করার সময় অনেক অজানা তথ্য জানা যায়। প্রেম ভালোবাসার নাটক তো সব সময় হয়। কিন্তু দেশের নাটকের সংখ্যা অনেক কম। এগুলো নির্মাণে আনন্দ থাকে বেশি।


এদিকে ভাষা দিবসের আগে ভালোবাসা দিবস। দীপার কাছে ভালোবাসা মানে কি? তিনি বলেন, ভালোবাসা শুধু দুজন নর-নারীর মধ্যেই হয়না। মায়ের সঙ্গে সন্তানের এবং স্বামীর সঙ্গে স্ত্রীর ভালোবাসাও হয়। আর ভালোবাসাকে নির্দিষ্ট একটি দিনের মধ্যে বন্দি রাখতে হবে কেন? ভালোবাসার মানুষগুলোর প্রতি সব সময় ভালোবাসা থাকতে হবে। ভালোবাসা দিয়ে অসম্ভবকে সম্ভব করা যায়। এছাড়া ভালোবাসাকে কুলষিত না করাই উচিত। চলতি বছরের জুন মাসে এই অভিনেত্রী ক্যারিয়ারের বিশ বছর পূর্ণ করবেন।


কেমন ছিল এই সময়ের জার্নি? এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি যখন অভিনয় শুরু করি, তখন ক্যামেরাম্যান, নির্মাতাসহ অনেকেই আমার বড় ছিলেন। কিন্তু এখন যাদের সঙ্গে আমি কাজ করি তাদের বেশির ভাগ বয়সে আমার ছোট। সত্যি এটিকে আমি দারুণ এনজয় করি। সবাইকে আমি অনেক স্নেহ করি। শুটিং স্পটে তাদের আমার অনেক আপন আপন লাগে। তবে আমার কাছে বিশ বছর বেশি কিছু নয়। কারণ আমাদের সূবর্ণা আপা এবার ক্যারিয়ারের পঞ্চাশ বছর পূর্ণ করবেন। এখনো তিনি আমাদের কাছে এবং দর্শকের কাছে দারুণ জনপ্রিয়।


এখানেই একজন শিল্পীর স্বার্থকতা। চলতি সময়ের কারো কারো কাছে আমার বিশ বছর সময় নিশ্চয় বেশি মনে হবে। এই সময়ের অনেকেই দ্রুত জনপ্রিয় হয়ে আবার হারিয়ে গেছেন। ছোট পর্দার পাশাপাশি গেল বছর দীপাকে এটি চলচ্চিত্রে দেখা গেছে। এরপর এখনো নতুন কোনো চলচ্চিত্রের খবরে নেই তিনি।


নতুন চলচ্চিত্রে নেই কেন? এই প্রশ্নের উত্তরে দীপা বলেন, প্রথম চলচ্চিত্রের পর আরো কয়েকটি চলচ্চিত্রের প্রস্তাব পেয়েছি। কিন্তু নিজেকে প্রকাশ করার মতো তেমন কোনো গল্প ও চরিত্র পাইনি। তাই এখনো নতুন চলচ্চিত্রের বিষয়ে কিছু বলতে পারছি না। ক্যারিয়ারের শুরু থেকে মনের মতো একটি চরিত্রের জন্য অপেক্ষা করেছি। সেই রকম চরিত্র পাওয়ার পরেই ‘ভাইজান এলোরে’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছি। এখন যদি তার কাছাকাছি কোনো চরিত্র না পাই তাহলে অভিনয় করার কোনো মানে হয়না।

Print