প্রতি চারজনের একজন মারা যায় মনুষ্যসৃষ্ট দূষণের কারণে: জাতিসংঘ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
১৪ মার্চ, ২০১৯ ০১:১৫:১৮
#

বিশ্বব্যাপী অকালে মারা যাওয়া প্রতি চারজনের মধ্যে একজন মনুষ্যসৃষ্ট দূষণ এবং পরিবেশের অবনতির কারণে মারা যায়।


বুধবার জাতিসংঘের পৃথিবীর বিপজ্জনক রাষ্ট্র বিষয়ক একটি ল্যান্ডমার্ক রিপোর্টে এই তথ্য জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ফ্রান্স-ভিত্তিক বার্তা সংস্থা ‘এএফপি’।


এই রিপোর্টে বলা হয়, প্রতি বছর দূষিত পানি পান করার কারণে ১.৪ মিলিয়ন মানুষ মারা যায়। অন্যদিকে দূষিত বায়ু গ্রহণের কারণে প্রতি বছর ৬-৭ বিলিয়ন মানুষ মারা যায়।


সংস্থাটি সতর্ক করে জানায়, কয়েক বিলিয়ন মানুষের জীবিকার সঙ্গে সম্পৃক্ত যানবাহন থেকে নির্গত বস্তুসহ ধোয়া ও কুয়াসার মিশ্রণ এবং রাসায়নিক পদার্থ মিশে দূষিত হওয়া পানি ইকোসিস্টেমের ধ্বংসকে বিশ্বব্যাপী মহামারীর মতো তরান্বিত করছে।


‘দ্য সিক্সথ গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট আউটলুক’(জিইও) নামের এই সাত শতাধিক পৃষ্ঠার রিপোর্ট তৈরিতে কাজ করেছে ৭০টি দেশের ২৫০ জন বিজ্ঞানী। এতে বিশ্বের ধনী ও গরিব দেশগুলোর মধ্যকার ব্যাপক বৈষম্য তুলে ধরা হয়েছে। ধনী দেশগুলোর দূষণ এবং খাদ্য বর্জ্য সারাবিশ্বের ক্ষুধা, দারিদ্র্য এবং রোগ-বালাইয়ের জন্য দায়ী।


যানবাহন ও কলকারখানাসহ বিভিন্ন উৎস থেকে নির্গত গ্রিনহাউজ গ্যাসের ফলে সৃষ্ট খরা, বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়ের কারণে সাগরের পানির স্তর বাড়ছে। ভবিষ্যতে জলবায়ু পরিবর্তন কয়েক বিলিয়ন মানুষের জীবন ঝুঁকির মুখে পড়বে।


বিশ্বের নেতারা ২০১৫ সালে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি অনুসারে বৈশ্বিক উষ্ণতা রোধের জন্য নিজেদের দেশের যানবাহন ও কলকারখানাসহ বিভিন্ন উৎস থেকে নির্গত বস্তুর পরিমাণ কমাতে পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হন।


এরপরও স্বাস্থ্যের ওপর দূষণ, বন উজাড় এবং মেকানাইজড ফুড-চেইনের প্রভার কমার বিষয়টি বোঝা যায়নি।


এমআর

Print