পুলিশ হেফাজতে শিক্ষকের মৃত্যু, বিক্ষোভে উত্তাল কাশ্মীর

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
২০ মার্চ, ২০১৯ ১৫:১২:৫৮
#

পুলিশ হেফাজতে শিক্ষক রিজওয়ান আসাদ পন্ডিতের (২৮) মৃত্যুর ঘটনায় বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর।  যৌথ প্রতিরোধ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে বুধবার কাশ্মির উপত্যকায় বনধের ডাক দেয়া হয়েছে।


স্থানীয় পুলওয়ামা এলাকায় বিক্ষোভ করেছেন কয়েক হাজার মানুষ। ইতোমধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট সেবা। খবর আলজাজিরা'র। 


বুধবার (২০ মার্চ) অবরোধ ডেকেছেন কাশ্মীরের স্বাধীনতাপন্থী নেতারা। ইতোমধ্যে অবন্তিপুর ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। রিজওয়ান এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অতিথি শিক্ষক ছিলেন।


পুলওয়ামা জেলার অবন্তিপোরার বাসিন্দা রিজওয়ান পণ্ডিত স্থানীয় একটি বেসরকারি স্কুলে পড়াতেন। নিরাপত্তা এজেন্সি গত ৩দিন আগে তাঁকে গ্রেফতার করেছিল।



মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বিক্ষোভ শুরু করেন কাশ্মীরের মানুষ। শ্রীনগরের বেশ কিছু অংশ বিক্ষোভের কারণে বন্ধ থাকে। অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ রাখা হয়। বিক্ষোভ ঠেকাতে টিয়ার গ্যাস ছোড়ে পুলিশ।


ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল (১৯ মার্চ) ডাউনটাউন শ্রীনগর, মৈসুমাসহ বিভিন্ন এলাকায় বনধ পালিত হয়। জামিয়া মসজিদ থেকে মাইকে বনধের আহ্বান জানানোর পরে নৌহাট্টা, গোজওয়ারা, রাজৌরি কদল, হাওয়াল ও খানইয়ার এলাকার ব্যবসায়ীরা তাঁদের দোকানপাট বন্ধ করে দেন। দক্ষিণ কাশ্মিরের অবন্তিপোরা এলাকায় সমস্ত দোকানপাট, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ও সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল। কর্তৃপক্ষ সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে সংশ্লিষ্ট এলাকায় ইন্টারনেট পরিসেবা স্থগিত করে দেয়।



এই সম্পর্কে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ‘বন্দি মুক্তি কমিটি’র সম্পাদক  মণ্ডলীর সদস্য ভানু সরকার মঙ্গলবার রেডিও তেহরানকে বলেন, “হেফাজতে মৃত্যু হলে সেজন্য দায়ী হল প্রশাসন। এধরণের মৃত্যুর ঘটনায় আমরা বিচারবিভাগীয় তদন্ত এবং এরসঙ্গে যারা যুক্ত তাদের খুঁজে বের করে দোষীদের শাস্তি দিতে হবে। এটা বন্দি মুক্তি কমিটির ‘স্ট্যান্ডার্ড প্রসিডিওর’। কারাগারে বা পুলিশ হেফাজতে কেউ মারা গেলে আমাদের প্রথম দাবি হল,  বিচারবিভাগীয় তদন্তের মধ্য দিয়ে দ্রুত সত্য বের করা এবং  এরমধ্যে যারা যারা যুক্ত থাকবে তাঁদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা করা।”


জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আব্দুল্লাহ ওই ঘটনাকে অগ্রহণযোগ্য বলে অভিহিত করে এর যথাযথ তদন্তসহ হত্যাকারীদের কঠোর শাস্তি দাবি করেছেন।


রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও পিডিপি নেত্রী মেহেবুবা মুফতি ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।


এমবি   

Print