স্বৈরতন্ত্র স্থায়ী হবে না: ড. কামাল

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১৩ মে, ২০১৯ ২০:৪৯:৫৩
#

দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে বৃহত্তর ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন গণফোরাম সভাপতি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন।তিনি বলেছেন, এদেশে স্বৈরতন্ত্রের কোনো স্থান হবে না।


সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক নাগরিক শোক সভায় এ আহ্বান জানান তিনি। সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহর স্মরণে এই শোকসভার আয়োজন করা হয়।


ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘স্বৈরতন্ত্র অনেকবার চেষ্টা করেছে এদেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে, চিরস্থায়ী হতে। কেউ কিন্তু পারে নাই। আমি শতভাগ গ্যারান্টি দিতে পারি, আমার অভিজ্ঞতার আলোকে বলতে পারি এ দেশে স্বৈরতন্ত্রের কোনো জায়গা নাই। যারা মনে করেন গণতন্ত্রকে চাপা দিয়ে, অস্ত্র দিয়ে, বিভিন্ন রকমের প্রভাব খাটিয়ে চিরস্থায়ী হওয়া যায় তাহলে তারা আহাম্মকের স্বর্গে বাস করছেন।’


গণতন্ত্র পূণরুদ্ধোরে বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, স্বৈরতন্ত্রের আলামতগুলো চারদিকে লেগে আছে। সে কারণে নিরাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই। মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধকে কেন্দ্র করে আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হই। বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলি।


সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহকে স্মরণ করে ড. কামাল বলেন, আমি যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করি তখন থেকে তাকে (মাহফুজ উল্লাহ) চিনি। আজকে আমি মোটেও নিরাশ নই। কারণ মাহফুজ উল্লাহকে শ্রদ্ধা জানাতে সব মহলের লোক এখানে একত্রিত হয়েছেন। উনাকে সম্মান জানাচ্ছেন কেন? কারণ তিনি ঝুঁকি নিয়েছিলেন, সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছিলেন। যখন উচিত কথা বলা ঝুঁকিপূর্ণ ছিল, তখন তিনি উচিত কথা বলেছিলেন।


তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খানের সভাপতিত্বে নাগরিক শোক সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি আসম আব্দুর রব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার‌্য অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন, সাবেক কূটনীতিক শমসের মুবিন চৌধুরী, পিএসসির সাবেক চেয়ারম্যান ড. সাদাত হোসেন, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, নিউএজ পত্রিকার সম্পাদক নূরুল কবির, মানবজমিনের সম্পাদক মতিউর রহমান প্রমুখ।


এমআর

Print