ভয় দেখিয়ে চাঁদাবাজি: বংশাল থানার ৩ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
২০ মে, ২০১৯ ২৩:০৭:৪৬
#

অস্ত্র ও মাদকের গডফাদার বানিয়ে মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে বংশাল থানার তিন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।


সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম আবু সুফিয়ান মো. নোমানের আদালতে আব্দুস সালাম নামের এক ব্যবসায়ী মামলাটি দায়ের করেন।


আদালত বাদির জবানবন্দি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে আগামী ২৯ জুন প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন বলে জানান বাদি আব্দুস সালাম।


আসামিরা হলেন- বংশাল থানার উপ-পরিদর্শক রায়হান, সহকারী উপ-পরিদর্শক হাছেন ও অমিত।


মামলায় অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত ১৪ মে দুপুর পৌনে ২টার দিকে গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে জানিয়ে মামলার বাদীর ভাই সাবের মিয়াকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বংশাল থানায় নেয়ার চেষ্টা করা হয়। এ সময় মামলার বাদী তাদের কাছে গ্রেফতারি পরোয়ানা দেখতে চান। তারা গ্রেফতারি পরোয়ানা না দেখিয়ে নানা টালবাহানা শুরু করেন।


এরপর আসামি বংশাল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক অমিত বলেন, সাবের মিয়া একজন তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী, তাকে ক্রসফায়ার দেয়ার নির্দেশ আছে। এই বলে তাদের ভয়-ভীতি দেখাতে থাকেন। মামলার আসামি বংশাল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক হাছেন তাদের কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন।


তখন বাদী ও তার ভাই বলেন, তাদের পক্ষে এত টাকা দেয়া সম্ভব না। এক পর্যায়ে আসামি হাছেন ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। ওই টাকা না দিলে বাদীকে অস্ত্র ও মাদকের গডফাদার বানিয়ে জেলে ঢুকিয়ে দেয়ার হুমকি দেন।


প্রাণ রক্ষার্থে তারা আসামিদের ২ লাখ টাকা দিতে রাজি হন। আসামিরা তাদের ডিআইটি মার্কেটে নিচতলা আসতে বলেন। সেখানে গিয়ে বাচার জন্য তাদের ২ লাখ টাকা ঘুষ প্রদান করেন। ২ লাখ টাকা ঘুষ লেনদেনের কিছু ঘটনা বাদীপক্ষ মোবাইলে ধারণ করেন।


এএস

Print