বাজেটে পুঁজিবাজারে থাকবে বিশেষ প্রণোদনা

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
০৯ জুন, ২০১৯ ১৫:৪৮:৪৪
#

আগামী বাজেটে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য বিশেষ প্রণোদনাসহ লিস্টেড কোম্পানির কর্পোরেট কর কমানোর দাবি জানিয়েছেন পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা। অন্যদিকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের উৎসাহে করমুক্ত লভ্যাংশ ২৫ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা করার প্রস্তাবনা দিয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ।

সংসদে অর্থমন্ত্রী বলেছে- পুঁজিবাজারকে শক্তিশালী করতে এবারের বাজেটে থাকছে প্রণোদনা। তবে সেটি খোলাসা করেননি অর্থমন্ত্রী। সেজন্য অপেক্ষা করতেই হচ্ছে ১৩ই জুন পর্যন্ত। 

এ বিষয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সাবেক সহ সভাপতি আহমেদ রশীদ লালী বলেন, অর্থমন্ত্রী এখনো স্পষ্ট করে বলে নাই বাজেটে কি থাকছে, তাই আমরাও কিছু বলতে পারছি না কি থাকবে। পাকিস্তান, ভারত, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ওরা পুঁজিবাজারে যে এ আইটি টা কাটে, তার তুলনায় আমাদেরটা অনেক বেশি প্রায় দ্বিগুন। এটা কমালে ভালো হয়।

বাজেটে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের জন্য বিশেষ প্রণোদনার কথা বলছেন অনেকেই। মার্কেন্টাইল ব্যাংক সিকিউরিটিজ লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক বলেন, পুঁজিবাজারে ক্ষতিগ্রস্ত ছোট বড় সব বিনিয়োগকারীদেরকেই আর্থিকভাবে সহায়তা করা উচিত। কার কি অবস্থান বা কি লোন ছিল, তা আমাদের জানালে আমরা তাদের সহায়তা করার চেষ্টা করবো।

বাজারে তালিকাভুক্ত হলে কোম্পানির কর্পোরেট কর কমানোর মত প্রণোদনাও দেয়া হতে পারে। এতে বাড়বে তালিকাভুক্ত কোম্পানির সংখ্যা বলে জানান ব্রাক ইপিএল স্টক ব্রোকারেজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ এম এ রহমান। তিনি বলেন, আমেরিকাতে তাদের সরকার কর্পোরেট ট্যাক্স কমিয়ে যেসব কোম্পানী দেশের বাইরে ভেঞ্চার বিনিয়োগের প্ল্যান ছিল সেসব কোম্পানীকে তারা আমন্ত্রণ জানিয়েছে যে তোমরা আমাদের দেশে আসো আমরা ট্যাক্স কমিয়ে দিব। তাই আমার মতে খেলাটা হচ্ছে কর্পোরেট ট্যাক্সে।

এদিকে পুঁজিবাজারের উন্নয়নে একগুচ্ছ প্রস্তাবনা রয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের। যা বাজেটে এলে সুফল পাবে পুঁজিবাজার।  

পুঁজিবাজার নিয়ে ডিএসই'র প্রস্তাবনাঃ

১. করমুক্ত লভ্যাংশ ২৫ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা করা।

২. তালিকাভুক্ত কোম্পানির কর্পোরেট কর পার্থক্য ১০% থেকে ২০% করা।

৩. এসএমই মার্কেটের লেনদেনে উৎসে কর অব্যাহতি।

৪. স্টক এক্সচেঞ্জকে ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন পরবর্তী ৫ বছরের জন্য পূর্ণ কর অব্যাহতি।

ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশানের সাবেক সভাপতি মোস্তাক আহমেদ সাদেক বলেন, পুঁজিবাজারের নন লিস্টটেট কোম্পানীগুলো কিন্তু ট্যাক্স কম দেয়, এছাড়া অনেক কারচুপিও করে।কিন্তু লিস্টেড কোম্পানীগুলো তা করতে পারে না। তাই আমরা চাই এদের ট্যাক্স বাড়িয়ে ২০ থেকে ৫০ পারসেন্ট করা হোক।

তবে ডিএসই'র বিভিন্ন প্রস্তাবনা থাকার পরেও পুঁজিবাজারের নিয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট ঘোষণা ছিলো না গেলবারের বাজেটে। এবারের বাজেটে কি থাকে সেটাই এখন দেখার বিষয়।


এসএম

Print