কৃষক প্রতি ৫ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ চায় সিপিডি

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১১ জুন, ২০১৯ ২২:৩৪:৪০
#

এবছর ধানের দাম নিয়ে কৃষকের সঙ্গে অন্যায় করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)।  


সংস্থাটির ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, “এ রকম অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনার প্রকট চিত্র অন্য খাতে দেখা যায়নি। তাই কৃষক ভর্তুকি দাবি করতেই পারে।”


তাই এবছর প্রত্যেক ধানচাষীকে ৫ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার সুপারিশ জানিয়েছে সিপিডি। সংস্থাটির দেওয়া হিসেবে চলতি বছর ১ কোটি ৮০ লাখ ধানচাষীর প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা দিলে সরকারের ৯ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে।


আজ (১১ জুন)মঙ্গলবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের অর্থনৈতিক পর্যালোচনার পর্যবেক্ষণ তুলে ধরতে গিয়ে সংস্থাটির পক্ষ থেকে এই সুপারিশ করা হয়।


সংস্থাটির ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, “রপ্তানি খাত ৫ শতাংশ হারে নগদ সহায়তা দাবি করছে। এটা দিলে সরকারের বাড়তি ১৫ হাজার কোটি টাকার মতো ব্যয় হবে। ফলে রপ্তানি খাতে মোট ভর্তুকি দাঁড়াবে ২০ হাজার কোটি টাকার মতো। আমি কৃষককে ৯ হাজার কোটি টাকা দিতে কোনো সমস্যা দেখি না। এটা দিলে তা যুক্তিযুক্ত ও সাম্যবাদী আচরণ হবে।”


চলতি বছর ধানের দাম নিয়ে কৃষকের সঙ্গে অন্যায় করা হয়েছে মন্তব্য করে দেবপ্রিয় আরও বলেন, “এ রকম অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনার প্রকট চিত্র অন্য খাতে দেখা যায়নি। তাই কৃষক ভর্তুকি দাবি করতেই পারে।”


বৈদেশিক মুদ্রার মজুত পরিস্থিতিকে সামষ্টিক অর্থনীতির ওপর চাপ বাড়ছে বলে উল্লেখ করে দেবপ্রিয় বলেন, “সরকার যেটা করছে- ডলার বিক্রি করে টাকাকে স্থিতিশীল রাখার চেষ্টা করছে। টাকাকে স্থিতিশীল পর্যায়ে রাখার যৌক্তিকতা নেই। প্রতিযোগিতার সক্ষমতাকে চালু রাখতে হলে টাকাকে এখন নিচে নামিয়ে নিয়ে আনতে হবে। এটা সামষ্টিক অর্থনীতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ।”


আসছে বাজেটে ‘কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া উচিত হবে না’মন্তব্য করে সিপিডি’র ফেলো বলেন, “কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হলে তা আওয়ামী লীগ সরকারের নির্বাচনি ইশতেহার ব্যত্যয় ঘটবে।”


এমবি  

Print