রপ্তানিতে ৩ শতাংশ প্রণোদনা চায় বিজিএমইএ

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
১৭ জুন, ২০১৯ ০৩:৫৮:৩৪
#

পোশাক রপ্তানিতে ৩ শতাংশ নগদ প্রণোদনা দাবি করেছেন তৈরি পোশাক শিল্পমালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। আগামী অর্থবছরের বাজেটে এর জন্য প্রয়োজনীয় বরাদ্দ রাখার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।


আগামী ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে তৈরি পোশাক রপ্তানিতে ১ শতাংশ নগদ প্রণোদনা রাখার প্রস্তাব দিয়েছে সরকার। তবে শুরু থেকে বিজিএমইএ’র দাবি ছিল সব বাজারে রপ্তানির ক্ষেত্রে ৫ শতাংশ নগদ সহায়তা দিতে হবে।


প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে আজ (১৬ জুন) রোববার রাজধানীর গুলশানের একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করেন বিজিএমইএ’র সভাপতি রুবানা হক। সেখানে তিনি বলেন, সরকার মাত্র ১ শতাংশ নগদ প্রণোদনার প্রস্তাব দিয়েছে। কিন্তু রপ্তানিতে আমরা প্রণোদনার পরিমাণ ৩ শতাংশ করার প্রস্তাব দিচ্ছি।


বাজেট পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় রুবানা বলেন, ৩ শতাংশ প্রণোদনার জন্য সরকারকে আরও অতিরিক্ত ২ শতাংশ প্রণোদনার অর্থ বরাদ্দ রাখতে হবে। এতে সরকারের খরচ বাড়বে ৫,৬৫০ কোটি টাকা। এক্ষেত্রে প্রণোদনার মোট পরিমাণ দাঁড়াবে ৮,৪৭৫ কোটি টাকা।


এর পাশাপাশি প্রতি ডলারের বিপরীতে ৫ টাকা অবমূল্যায়ন চেয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি।


তিনি বলেছেন, এটা করা হলে বৈশ্বিক বাজারে রপ্তানিতে প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়বে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক রপ্তানিকারকদের। এটা করতে হলে সরকারকে বাড়তি ১২,৪১৯ কোটি টাকা ব্যয় করতে হবে বলেও জানান তিনি।


সংবাদ সম্মেলনে আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে পোশাক খাতের অবস্থান তুলে ধরতে বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, “আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের পোশাক খাত এখনও দুর্বল, যদিও দেশের অর্থনীতির সিংহভাগই টিকে আছে এই খাতের ওপর।”


রুবানা হক বলেন, “আমরা আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে যখন যাই তখন আসলে আমাদের শিশু মনে হয়, দুর্বল শিশু। একেবারে একটা নির্জন লোকালয়ে দাঁড়িয়ে থাকা দুর্বল শিশুর মতো মনে হয়। কারণ পৃথিবী এগিয়ে যাচ্ছে, ট্রেন্ড বদলে যাচ্ছে, কনজিউমারের প্যাটার্ন বদলে গেছে। আমরা সবাই অনলাইনে শপিং করি, আপনারা সবাই জানেন আসলে এটা।”


তিনি বলেন, “আমাদের কিন্তু জাতীয় পর্যায়ে সবাই সমালোচনা করেন। সমালোচনা করতে কেউ ছাড়েন না, এটা আসলে কষ্ট লাগে। আমরা চেষ্টা করছি বদলাতে।”


এমবি  

Print