দেশজুড়ে গুম-খুন-ধর্ষণের মহামারী ধারণ করেছে: রিজভী  

স্টাফ রিপোর্টার
টাইম নিউজ বিডি,
২১ জুন, ২০১৯ ২২:১৮:৩৯
#

সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি এবং সুচিকিৎসার দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল।


আজ (২১ জুন) শুক্রবার দুপুর ২টায় নয়াপল্টনস্থ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে আবারো বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।  


মিছিল শেষে সমাবেশে রিজভী বলেন, দেশে আইনের শাসন না থাকায় মানুষ ন্যায় বিচার পাচ্ছে না। তবে আওয়ামী লীগ তাদের পুরানো বাকশালী ঐতিহ্যের ধারায় দেশ থেকে নির্বাচন ব্যবস্থা ধ্বংস করে দেয়ায় মানুষ বর্তমান সরকারের দুঃশাসন থেকে মুক্তি পেতে এখন ঐক্যবদ্ধ ও সুসংগঠিত হচ্ছে।


তিনি বলেন, চারবারের প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা সাজানো মামলায় কারবন্দি রেখে এবং তার জামিনে বাধা সৃষ্টি করেও আজ্ঞাবাহী নির্বাচন কমিশনের সহায়তায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগের রাতে ভোট চুরির মাধ্যমে জোর জবরদস্তিমূলকভাবে ক্ষমতা দখলকারী অবৈধ আওয়ামী সরকার নিশ্চিন্তে থাকতে পারছে না। কেননা একটা গণতান্ত্রিক দেশে গণতন্ত্রকে কবরস্থ করে এবং বারবার গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আপোসহীন নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় অন্যায় সাজা দিয়ে বর্তমান অবৈধ সরকার অতি মাত্রায় বেপরোয়া ও নিষ্ঠুর হয়ে উঠেছে।


বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, সরকারের প্রতিহিংসায় বেগম জিয়া কারাবন্দি থাকলেও তিনি দেশের মানুষের কাছে এখন আরো সর্বাধিক জনপ্রিয় নেত্রী হয়ে উঠেছেন। অন্যায়ের বিরুদ্ধে তার আপোসহীনতার কারণে তিনি দেশের মানুষের কাছে গণতন্ত্রের প্রতীকে অভিষিক্ত হয়েছেন। এজন্যই শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী নেতাদের বুকে তীব্র জ্বালা। আমি বিএনপির পক্ষ থেকে আবারো আহবান জানাচ্ছি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন, জামিনে বাধা প্রদান করবেন না। তাকে তার পছন্দ অনুযায়ী বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসার সুযোগ দিতে হবে।


রিজভী আরও বলেন, রাষ্ট্রের কোনো মানুষই এখন নিরাপদে নেই। জানমালের সুরক্ষা চরম বিপদাপন্ন। সরকারের ভয়াবহ দুঃশাসনের কবলে পড়ে দেশজুড়ে গুম, খুন, বিচারবহির্ভূত হত্যা, ধর্ষণ, ব্যভিচার এখন মহামারী আকার ধারণ করেছে। দুঃশাসনের কবলে নারী ও শিশুদের ওপর নির্যাতনের মাত্রা এখন প্রকট হয়ে উঠেছে। দেশ থেকে ন্যায়বিচার বাধাগ্রস্ত হওয়ার কারণে সমাজবিরোধীদের দাপট বৃদ্ধি পেয়েছে। চারদিকে লুটপাট ও সমাজের সর্বত্র বিশৃঙ্খলার রমরমা রাজত্ব বিরাজমান।


মিছিলে স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির র্ভুঁইয়া জুয়েল, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন আলী, কেন্দ্রীয় নেতা সাদরেজ জামান, ঢাকা মহানগরীর ফখরুল ইসলাম রবিন, এসএম জিলানী, নজরুল ইসলাম, গাজী রেজওয়ান হোসেন রিয়াজ, রফিক হাওলাদার, সাবেক নেতা আনু মোহাম্মদ শামীম আজাদ, ওয়াহিদ বিন ইমতিয়াজ বকুল, মো: জাকির হোসেন, শাহাবুদ্দিন মুন্না,


আক্তারুজ্জামান বাচ্চু, আবুল কালাম আজাদ, ঢাকা জেলার আব্দুর রহমান বাবুল, ওয়াহিদুর রহমান বাণী, নারায়ণগঞ্জ জেলার আনোয়ার সাদত সায়েম, মাহবুবুর রহমান, জাকারিয়া সালেহ স্বপন, সালাহউদ্দিন সানু, নারায়ণগঞ্জ মহানগরীর আবুল কাউসার আশা, গাজীপুর জেলার হাসিবুর রহমান মুন্না, নুরুল আলম, শিপলু বকশী, জাকির হোসেন, গাজীপুর মহানগরীর আরিফ হাওলাদার, শাহাদাৎ হোসেন শাহীন, নুরুজ্জামান সরদার, আবদুল্লাহ আল মামুন সহ স্বেচ্ছাসেবক দলের কয়েকশত নেতাকর্মী অংশ নেন।


এছাড়া বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের কনফারেন্স হলে ছাত্রদল পশ্চিম ও উত্তর শাখার এক কর্মীসভায় রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে ছাত্রদল অত্যন্ত সুসংগঠিত। তার সুচিন্তিত দিকনির্দেশনা ও সিদ্ধান্তেই ছাত্রদল পরিচালিত হচ্ছে। ছাত্রদলের গৌরবময় অতীত কর্মকাণ্ডের ধারাবাহিকতা এখনো অব্যাহত আছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন বেগবান করতে ছাত্রদলের নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীরা এখনো ঐক্যবদ্ধ। এসময় ঢাকা মহানগর পশ্চিম ও উত্তরের বিভিন্ন থানা শাখার বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।


এমবি     

Print