শার্শা-ঝিকরগাছা সীমান্তে নীলকুঠি ফ্যামিলি পার্ক উচ্ছেদ, ৫ বোমা বিস্ফোরণ

বেনাপোল করেসপন্ডেন্ট
টাইম নিউজ বিডি,
২৬ জুন, ২০১৯ ০২:৪৪:৩৩
#

যশোরের শার্শা ও ঝিকরগাছা উপজেলার দূর্গম সীমান্তে স্থাপিত নীলকুঠি ফ্যামিলি পার্ক উচ্ছেদ করে দিয়েছে জমির মালিক দাবিদার এলাকাবাসি। তাতে প্রতিহত করতে গিয়ে পার্ক মালিকের কর্মীরা ৫টি বোমা বিস্ফোরণ ঘটালে ৩ জন আহত হয়। এসময় প্রাণ নিয়ে পালিয়ে যায় স্থানীয় মেম্বার আইনাল হক ও নিরীহ গ্রামবাসি।


এই ঘটনার পর দুই থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এনিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।


ভুক্তভোগী মির্জাপুর গ্রামের ফিরোজ হোসেন, মহিউদ্দিন মাষ্টার, মোস্তফা খাঁ, বিধাব বৃদ্ধা নবিছন বিবি, আবু ছাদ, সেকেন্দার আলী, সাফিয়া খাতুন’সহ একাধিক ব্যাক্তির অভিযোগ তাদের ফসলি জমি দখল করে উলাশীর ইউপি সদস্য যুবলীগ নেতা তরিকুল ইসলাম মিলন নীল কুঠি ফ্যামিলি পার্ক নামে একটি পিকনিক স্পট বানিয়েছে।


ভুক্তভোগীদের অভিযোগে জানা যায়, মিলন মেম্বার তার পার্কে মাদক ব্যবসা, পতিতা ব্যবসা করে আসছে। তার বিরুদ্ধে অন্যের জমি দখল, সরকারী বেতনা নদী দখল, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি, বোমাবাজি’সহ একাধিক অসামাজিক কর্মকান্ডের অভিযোগ রয়েছে।


তারা আরও জানান, গত ১০ বছর ধরে তাদের জমি দখল করলেও মিলন মেম্বার ঐ দখলি জমির কোন লাভ বা টাকা দেননা। যে কারনে গত ১০ বছর ধরে এই নিয়ে অনেকবার বিচার শালিশ হলেও মিলন তার দখলি জমি মুল মালিকদের ফেরত দেননি। কোন চুক্তিও করেননি। জমির মালিকদের অভিযোগ তাদের জমিতে তারা গেলে মিলন মেম্বার তার বড়ভাই ও তার ক্যাডাররা বেদম ভাবে মারপিট করে হত্যার হুমকি দেয়, মামলা দিয়ে হয়রানি করে। রাতে বোমা মেরে ভয় প্রদর্শন করে। যে কারনে একাধিকবার বিচার করে ব্যার্থ হয় উলাশীর চেয়ারম্যান আয়নাল হক’সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।   


ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, তাদের দখলি জমি ফেরত পেতে স্থানীয় মেম্বর, চেয়ারম্যান, ওসি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেও কোন কাজ হয়নি। তারা জানান, সর্বশেষ এ ব্যাপারে ঝিকরগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান ও ওসি’র নির্দেশে শান্তি পূর্ণ ভাবে মঙ্গলবার (২৫ জুন) সকালে তারা গ্রামের মেম্বার ও গন্যমান্য ব্যাক্তিদের সাথে নিয়ে তাদের জমিতে যান ও ব্যাড়া নির্মান করেন। এ সময় মিলন মেম্বারের বড় ভাই শরিফুল ইসলাম পিপুল (৫০)’র নেতৃত্বে ভাইপো আশিক (৩৫), ক্যাডার সোহেল (৩৫), নাককাটি আসাদুল (৩৩), ম্যানেজার শরীফ (৪০), বাবলুর রহমান (৪৫), শামিম’সহ একাধিক সন্ত্রাসী জমির মালিকদের উপর অতর্কিত বোমা হামলা করে।


পার্কে সন্ত্রাসীরা পর পর ৫টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এসময় জমির মালিক জসিম (৩৫), হবিবর (৫৫) ও চৌকিদার ইসরাফ আলী (৪০) আহত হয়।


আহত জসিম ও হবিবর জানায়, মিলন মেম্বারের বড় ভাই পিপুল, আশিক, নাককাটি আসাদুল ও সোহেল তাদের ধরে বেদম ভাবে মারপিট করেছে। এর আগেও সন্ত্রাসীরা মির্জাপুর গ্রামের প্রফেসার কামরুজ্জামান স্বপন, কালু, ফিরোজ, কেয়ামউদ্দিন’সহ একাধিক ব্যাক্তিকে মামপিট করেছে। এখন মির্জাপুর গ্রামের কোন সাধারন মানুষ উলাশী বাজারে আসতে পারছে না বলেও অভিযোগ উঠেছে।  


পার্কের মালিক তরিকুল ইসলাম মিলন জানান, জমির মালিকেরা তাদের জমিদখলে নিতে তার পার্ক ভাংচুর করেছে। তার কোন লোকজন পার্কে ছিল না। তার কোন লোকজন বোমা বিস্ফোরণ করেনি। 


ঝিকরগাছা থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দীর্ঘদিন ধরে মিলন মেম্বার অনেকের জমিদখল করে রেখেছে। জমির মালিকেরা তাদের জমিতে আসলে উভয় পক্ষে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। ঘটনা শুনে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসে। এখন পরিবেশ শান্ত। তিনি আরও জানান, দখলি জমি নিয়ে আদালতে মামলা আছে।


বিষয়টি তদন্ত করে সমাধান করা হবে বলে জানান ওসি।  


নাছির/এমবি  

Print