রিকশা বন্ধের সিদ্ধান্তে অনড় দুই সিটি

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
১১ জুলাই, ২০১৯ ১৭:০৫:৫৩
#

যানজট নিয়ন্ত্রণে রাজধানীর দুটি প্রধান সড়কসহ তিন রুটে রিকশা চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। রিকশাচালক ও মালিকদের বিক্ষোভের পরও রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মালিবাগ পর্যন্ত প্রগতি সরণিতে রিকশা চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন।


ঢাকা উত্তরে নগর ভবনে রিকশা মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের নিয়ে সভার পর মেয়র আতিকুল ইসলাম এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।


আতিকুল বলেন, কুড়িল থেকে মালিবাগ পর্যন্ত প্রগতির সরণির মূল সড়কে কোনো রিকশা চলাচল করবে না। তবে এ সড়কের পাশে কোথাও কোথাও বিদ্যমান সার্ভিস লেইন দিয়ে শুধু বৈধ রিকশা চলতে পারবে।


এক্ষেত্রে রিকশায় চলাচলে ইচ্ছুক যাত্রীদের পথ বাতলে দিয়ে মেয়র বলেন, কেউ কুড়িল থেকে রামপুরা যেতে চাইলে ‘নর্দ্দা পর্যন্ত ভেতরের সড়ক’ ব্যবহার করবে। ‘নর্দ্দা থেকে কালাচাঁদপুর’ (সুবাস্তুর আগে) পর্যন্ত সার্ভিস লেইন ব্যবহার করবে। সেখান থেকে ভেতরের সড়ক দিয়ে রামপুরা ব্রিজের আগে মূল সড়কে উঠে ব্রিজ পার হবে।


গত ৩ জুলাই দক্ষিণ নগর ভবনে বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটির সমন্বয় সভা শেষে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন জানান, ৭ জুলাই থেকে রাজধানীর তিনটি রুটে রিকশা চলাচল করবে না। রুটগুলো হচ্ছে কুড়িল-রামপুরা-সায়েদাবাদ, গাবতলী-আসাদগেট-আজিমপুর ও সায়েন্সল্যাব-শাহবাগ।


এর ফলে এসব সড়কে যানবাহনের গতি কিছুটা বাড়লেও রিকশাচালক ও মালিকরা আন্দোলনে নেমেছেন। তাদের দাবি, বিকল্প ব্যবস্থা করার পর এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে হবে। সড়ক থেকে রিকশা তুলে দিলে তারা বিপদে পড়বেন। তবে দুই সিটি করপোরেশন তাদের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে অনড় অবস্থানে রয়েছে।


তবে রিকশা বন্ধের প্রথম দিন থেকেই আন্দোলন শুরু করেন রিকশাচালক ও মালিকরা। তাদের দাবি, প্রধান সড়কগুলোতেও তাদের চলাচলের অনুমোদন দিতে হবে। না হয় তাদের পুনর্বাসন করতে হবে। এভাবে রিকশা বন্ধ করে দিলে তাদের রুজিতে টান পড়বে।


তবে রিকশাচালক-মালিকদের এই দাবি মানতে নারাজ দুই সিটি করপোরেশন। সংস্থা দুটি বলছে, মূল রাজধানীর প্রায় ২ হাজার ৩০০ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে মাত্র ২০-২৫ কিলোমিটারের মতো সড়কে রিকশা চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।


ফলে রিকশাচালকদের মূল কর্মক্ষেত্রে কমে যায়নি, পর্যাপ্ত রয়েছে। নগরীতে মেট্রোরেলসহ উন্নয়ন কাজের কারণে প্রধান একটি সড়ক সংকুচিত হয়ে পড়ায় যানজট নিয়ন্ত্রণে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।


জানা গেছে, ২ সিটি করপোরেশনের লাইসেন্সধারী রিকশা রয়েছে ৮০ হাজার ৪৭৩টি। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণে ৫২ হাজার ৭৫৩ এবং উত্তরে ২৬ হাজার ৭২০টি। তবে রাস্তায় রিকশা চলাচল করে ৮ লাখের বেশি। ১৯৮৬ সালের পর কোনও রিকশার লাইসেন্স দেওয়া হয়নি।


 


এএস


 


 

Print