ভয়ের পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে: আদিলুর

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
০৪ জানুয়ারি, ২০১৫ ২০:৪৪:৩১
#

৫ জানুয়ারি থেকে ৫ জানুয়ারি। কেমন গেল একটি বছর। কেমন গেল দেশের রাজনীতি ও মানবাধিকার পরিস্থিতি। চলমান রাজনৈতিক সংকট সমাধানের উপায় কী? এসব নিয়ে কথা বলেছেন মানবাধিকার সংগঠন অধিকার–এর সেক্রেটারি আদিলুর রহমান খান।


সাক্ষাৎকার নিয়েছেন প্রথম আলো'র মশিউল আলম।


প্রশ্ন: ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত সরকার এক বছর পূর্ণ করতে যাচ্ছে। এই এক বছরে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কী?


আদিলুর রহমান খান: গত এক বছরে মানবাধিকার পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটেছে। আমাদের সংস্থা অধিকারের হিসাব অনুযায়ী, ২০১৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৭০টি বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর সদস্যরা ৩৯ ব্যক্তিকে ধরে নিয়ে যাওয়ার পর তাঁরা আর কখনোই ফিরে আসেননি। এই সময়ে রাজনৈতিক সহিংসতায় নিহত হয়েছেন ১৮৯ ব্যক্তি, আহত হয়েছেন ৯ হাজার ৪২৬ জন। তবে এই পরিসংখ্যানগুলো থেকে মানবাধিকার পরিস্থিতির অবনতির সম্পূর্ণ চিত্র ফুটে ওঠে না। নাগরিক স্বাধীনতা, মত ও তথ্য প্রকাশের অধিকার ভীষণভাবে খর্বিত হয়েছে। মানবাধিকার সংগঠন ও তাদের কর্মীদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাধা সৃষ্টি করা হয়েছে, দমন-পীড়ন চালানো হয়েছে, ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হয়েছে। এবং এসবই করা হয়েছে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনাবলি সম্পর্কে তথ্য প্রকাশের দায়ে। সামগ্রিকভাবে মানবাধিকারকর্মীদের জন্য একটা ভয়ের পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে।


প্রশ্ন: এই এক বছরে দেশের শাসনপ্রক্রিয়া অর্থাৎ গভর্নেন্স সম্পর্কে আপনার পর্যবেক্ষণ জানতে চাইছি।


আদিলুর রহমান খান: মূলত ২০১১ সালের জুন মাসে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রগঠনের কাজে বড় প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা হয়েছে। এরশাদের স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের লড়াই-সংগ্রামের পরিণতিতে পাঁচ, সাত ও আটদলীয় ঐক্যজোটের রূপরেখা অনুযায়ী বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বে যে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠিত হয়, তৎকালীন বিরোধী দলের চাপের মুখে পরবর্তী সময়ে সংবিধানের ত্রয়োদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা অন্তর্ভুক্ত হয়। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যেকার বিরোধ-সংঘাত, অবিশ্বাসের বাস্তবতায় নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সুযোগ তৈরি হয়েছিল এবং পরবর্তী তিনটি নির্বাচন সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থার আওতায় সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই ব্যবস্থায় সর্বশেষ ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট ক্ষমতায় আসে। কিন্তু তারপর বিরোধী দলগুলো ও বৃহত্তর জনমত সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা যেভাবে বাতিল করা হয়েছে এবং এই সংশোধনীর সমালোচনা করলে যে সর্বোচ্চ শাস্তির কথা বলা হয়েছে, তা বাংলাদেশের ওপর প্রচণ্ড আঘাত। এবং এটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার যে তিনটি মূল উপাদান: সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার ভিত্তিতে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা, তা থেকে এক বিরাট বিচ্যুতি। সেদিক থেকে দেখতে গেলে আইনের শাসনের প্রশ্নে দেশ একটা বড় বিপজ্জনক অবস্থার দিকে চলে গেছে।


প্রশ্ন: কেউ কেউ বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের ভোটের অধিকার হরণ করা হয়েছে। কিন্তু ক্ষমতাসীন পক্ষ দাবি করে এটা তারা নির্বাচন করতে বাধ্য হয়েছে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রক্ষার জন্য। বিরোধী দলগুলো কোনোভাবেই যখন নির্বাচনে আসছিল না, তখন সরকারের আর কী করার ছিল?


আদিলুর রহমান খান: দেখুন, পাকিস্তানিদের সঙ্গে আমাদের চূড়ান্ত বিরোধটা মুক্তিযুদ্ধে রূপ নিয়েছিল কিন্তু আমাদের ভোটাধিকার অস্বীকার করার কারণে। সত্তরের নির্বাচনের ফল অনুযায়ী পাকিস্তানিরা যখন আমাদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে গণহত্যা চাপিয়ে দিল, তখনই সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের দিকে আমরা ধাবিত হলাম। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি যে নির্বাচন করা হয়েছে, সেখানেও কিন্তু বাংলাদেশের জনগণের ভোটের অধিকারকে অগ্রাহ্য করা হয়েছে। ৪ কোটি ৮০ লাখ ২৭ হাজার ৩৯ জন ভোটারের ভোট দেওয়ার সুযোগ রাখা হয়নি। ১৫৩ সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। এ রকম অবস্থায় বাংলাদেশের মানুষ তাদের ভোটাধিকার হারিয়েছে—এ কথা অবশ্যই বলা যায়।


প্রশ্ন: তো এই ভোটাধিকারবিহীন অবস্থার কী ফল গত এক বছরে লক্ষ করা গেল?


আদিলুর রহমান খান: দেশে যখন জনগণের সমর্থিত শাসনব্যবস্থা থাকে না, তখন স্বাভাবিকভাবেই সেটা দমনপীড়নমূলক হয়ে ওঠে। বাংলাদেশে সেটাই ঘটেছে, একটা অগণতান্ত্রিক ও স্বেচ্ছাচারী রাষ্ট্রব্যবস্থার মধ্যে চলে এসেছে বাংলাদেশের জনগণ। আইনের শাসনের অধিকার তাদের পদে পদে খর্ব করা হচ্ছে। একজন নাগরিক ভিন্নমত পোষণের কারণে যেকোনো সময় গুম হয়ে যেতে পারেন, একজন নাগরিককে ক্রসফায়ারে হত্যা করে বলা হচ্ছে যে তিনি বিপথগামী মানুষ। মানুষকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ব্যাপক নির্যাতন করা হচ্ছে বা পায়ে গুলি করে পঙ্গু করে দেওয়া হচ্ছে। এসবের জন্য আমার এবং আমাদের পরিবারগুলো মুক্তিযুদ্ধ করেনি। আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম এমন বাংলাদেশের জন্য, যেখানে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে।


প্রশ্ন: রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অবস্থা কী?


আদিলুর রহমান খান: দুর্নীতি আরও ব্যাপক হয়েছে, অর্থনৈতিক বৈষম্য ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে। যেসব সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান সুশাসন ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করে, দুর্নীতি দমন কমিশন, মানবাধিকার কমিশনসহ সব রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক দলীয়করণ করা হয়েছে। এভাবে রাষ্ট্রকে জনগণের হাত থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।


প্রশ্ন: কিন্তু এসবের বিরুদ্ধে সমাজে বা রাজনৈতিক অঙ্গনে তেমন কোনো প্রতিবাদ-প্রতিরোধ নেই। কেন?


আদিলুর রহমান খান: বিভিন্ন সময় জনগণ এসবের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছে, নাগরিক সমাজ কথা বলার চেষ্টা করেছে। কিন্তু তাদের ওপর দমন-পীড়ন চালানো হয়েছে, সভা-সমাবেশ করার অধিকার থেকে তাদের বঞ্চিত করা হয়েছে। গুমের বিরুদ্ধে বলার কারণে, জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলে রিপোর্ট উত্থাপনের কারণে এবং পরবর্তী সময়ে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে রিপোর্ট প্রকাশ করার কারণে আমাকে ও আমার সহকর্মী নাসিরউদ্দিন এলানকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, আমাকে ৬২ দিন ও তাঁকে ২৫ দিন কারাবন্দী করে রাখা হয়েছে। আমাদের মামলা এখনো চলমান। শুধু আমাদের ওপর নয়, সারা দেশে কর্মরত মানবাধিকারকর্মীদের ওপরেও দমন-পীড়ন, হুমকি, কখনো কখনো তুলে নিয়ে যাওয়া—এসব চলেছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের তথ্য তুলে ধরার জন্য অধিকারের সব ফান্ড এনজিওবিষয়ক ব্যুরো এক বছর ধরে বন্ধ করে রেখেছে, আমাদের স্টাফদের আমরা বেতন দিতে পারি না। বন্ধু-শুভানুধ্যায়ীদের সহযোগিতায় আমরা কোনোমতে আমাদের সংস্থার কাজ চালিয়ে নিচ্ছি। আমরা সার্বক্ষণিক চাপের মুখে আছি, আমাদের সব যোগাযোগের ওপর গোয়েন্দা নজরদারি করা হয়।


প্রশ্ন: রাজনৈতিক প্রতিরোধের বাইরেও একটা সমাজে অন্যায়-অবিচার, রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন ও স্বৈরতান্ত্রিক ব্যবস্থার বিরুদ্ধে একধরনের সামাজিক প্রতিরোধ থাকে, যেটা আমরা এরশাদের স্বৈরশাসনের সময় দেখেছি। আমাদের সমাজ কি সেই প্রতিরোধ হারিয়ে ফেলেছে?


আদিলুর রহমান: আমার তো মনে হয় সেটা এখন অনুপস্থিত। এবং এই সামাজিক প্রতিরোধ ফিরে না এলে এই স্বৈরতান্ত্রিক ব্যবস্থার বিরুদ্ধে জনগণের বিজয় অর্জন সম্ভব নয়।


প্রশ্ন: বিরোধী রাজনৈতিক শক্তির প্রতিরোধ কোথায় গেল? সরকার বিরোধী দলকে দমন করতে চাইছে আর বিরোধী দল দমিত হচ্ছে, তারা এমনকি তাদের সভা-সমাবেশ করার সাংবিধানিক অধিকারও প্রয়োগ করতে পারছে না—এই অবস্থা কেন হলো?


আদিলুর রহমান: আজকের বিরোধী দল যখন ক্ষমতায় ছিল, তখন তারাও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রীয় কাঠামো গড়ে তোলার কাজটা করেনি, যে কাঠামোতে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিবাদ-প্রতিরোধের শক্তি থাকে। আজকের বিরোধী দলের প্রতিরোধের শক্তি নেই, কারণ তারা জনগণের স্বার্থ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে শুধু ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য আন্দোলন করছে। এটা জনগণের কাছে আকর্ষণীয় নয়। শুধু সেই আন্দোলনই জনগণের কাছে আকর্ষণীয় হয় যে আন্দোলন জনগণের স্বার্থের কথা বলে, জনগণকে সম্পৃক্ত করে। একটা ফ্যাসিবাদী শাসনব্যবস্থার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য যেভাবে ছাত্র, যুব, শ্রমিক, পেশাজীবীদের সঙ্গে ঐক্য গড়ে তুলতে হয়, বিরোধী দল সেই কাজটা কখনো করেনি। যদি করত, তাহলে আজ এমন প্রতিরোধহীন অবস্থা হতো না।


এএইচ

Print