দেশ পরিচিতি: ইরান

টাইম ডেস্ক
টাইম নিউজ বিডি,
০৬ মার্চ, ২০১৬ ১৩:৫৭:০০
#

রাষ্ট্রীয় নামঃ জমহুরি-ই-ইসলামী-ই-ইরান (The Islamic Republic of Iran)। ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান।


রাজধানীঃ তেহরান (দুই কোটি মানুষের বাস)।


সংক্ষিপ্ত ইতিহাসঃ ১৯০৬ সালের ৩০শে ডিসেম্বর পর্যন্ত পারস্য শাহ্ রাজবংশের শাসনাধীনে ছিল। এ সময় অর্থাৎ ৩০ ডিসেম্বর দেশটির প্রথম সংবিধান পাস হয়। ১৯২৫ সালের ১২ ডিসেম্বর এক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে এ বংশের শেষ শাহ্ ক্ষমতাচ্যুত হলে কাজার রাজবংশের শাসনের অবসান ঘটে এবং রেজা খান ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন। ঐ বছর ১২ ডিসেম্বর রেজা খান ‘রেজা শাহ্ পাহলাভি’ উপাধি ধারণ করেন।


১৯৩৫ সালের ২১ মার্চ পারস্যের নামকরণ হয় ‘ইরান’। সে বছর ১৬ সেপ্টেম্বর রেজা শাহ ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ান এবং তাঁর পুত্র মোহাম্মদ রেজা পাহলভি ক্ষমতা গ্রহণ করেন।


দেশব্যাপী বিক্ষোভ- বিদ্রোহ চরম আকার ধারণ করলে ১৯৭৯ সালের ১৭ জানুয়ারি শাহ্ ইরান ছেড়ে পালিয়ে যান। শিয়া মুসলিম সম্প্রদায়ের আধ্যাত্মিক নেতা আয়াতুল্লাহ রূহুল্লাহ খোমেইনি দীর্ঘ ১৫ বছরের নির্বাসিত জীবনের অবসান ঘটিয়ে ১৯৭৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ফ্রান্স থেকে দেশে ফিরে আসেন এবং ৫ ফেব্রুয়ারি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করেন। সে বছর (১৯৭৯) দেশটিকে ইসলামী প্রজাতন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ৯৯% জনগণ গণভোটের মাধ্যমে ইসলামী প্রজাতন্ত্রের পক্ষে ভোট প্রদান করে।


ভৌগোলিক অবস্থানঃ ইরানের উত্তরে মধ্য এশিয়ার আজারবাইজান, কাজাকিস্তান, ও কাসপিয়ান সাগর, পূর্বে আফগানিস্তান ও পাকিস্তান, দক্ষিণে ওমান উপসাগর ও পারস্য উপসাগর, পশ্চিমে ইরাক ও তুরস্ক অবস্থিত।


আয়তনঃ ইরানের মোট আয়তন ১৬,৩৮,০০০ বর্গকিলোমিটার।


জনসংখ্যাঃ ১৯৯১ সালের অফিসিয়াল তথ্য অনুযায়ী দেশটির মোট জনসংখ্যা ৫,৭৭,২৭,০০০। বর্তমানে ৭ কোটি।


জলবায়ুঃ ইরানে প্রধানত মরু অঞ্চলীয় আবহাওয়া বিরাজ করে। কাসপিয়ান সাগর তীরবর্তী অঞ্চলগুলোর আবহাওয়া নাতিশীতোষ্ণ। রাজধানী তেহরানে জানুয়ারি মাসের তাপমাত্রা ৫৪ ডিগ্রী ফারেনহাইট এবং জুলাই মাসে ৯৭ ডিগ্রী ফারেনহাইট পর্যন্ত ওঠে। বার্ষিক বৃষ্টিপাতের গড় ২৫.৪ সে.মি.।


ভাষাঃ জাতীয় ভাষা ফার্সি। ২য় ভাষা আরবি, ৩য় ভাষা ইংরেজি ও ফ্র্যান্স।


শিক্ষা : ৯০% লোক শিক্ষিত।


মুদ্রাঃ রিয়াল। ১ মার্কিন ডলার = ৬৫.৭ রিয়াল।


ধর্মঃ ইরানের অধিকাংশ নাগরিক শিয়া সম্প্রদায়ভুক্ত মুসলমান। কুর্দিস্তানসহ বেশ কটি এলাকায় সুন্নীদের বসবাস তবে দেশটিতে অন্য ধর্মের লোকও স্বাধীন ধর্মমত নিয়ে বসবাস করে।


সংবিধান ও সরকারঃ ইরানে প্রেসিডেন্ট শাসিত সরকার ব্যবস্থা বিদ্যমান। জনগণের ভোটে প্রেসিডেন্ট ৪ বছরের জন্যে নির্বাচিত হন। প্রেসিডেন্ট কর্তৃক মন্ত্রিপরিষদ গঠিত হয়। পুরো সরকার ব্যবস্থার ওপর ইমামের নেতৃত্বে অভিভাবক বা গার্ডিয়ান কমিটি কর্তৃত্বশীল।


খনিজ সম্পদঃ ইরানের প্রধান প্রধান খনিজ সম্পদের মধ্যে গ্যাস, লৌহ, কয়লা, সীসা, ম্যাঙ্গানিজ, লবণ প্রভৃতি প্রধান। দেশটির মূল খনিজ সম্পদ তেল।


কৃষিঃ ইরানে চাষাবাদযোগ্য মোট জমির পরিমাণ ১ কোটি ৪৮ লক্ষ হেক্টর। দেশটির কৃষিজাত পণ্যের মধ্যে গম, বার্লি, ধান, আখ, তামাক প্রভৃতি প্রধান।


এআইজে

Print