ডিইউজের নির্বাচনে গনি-শহিদ পরিষদের নিরংকুশ জয়

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) নির্বাচন-২০১৭ এর গনি-শহিদ পরিষদ নিরংকুশ জয় লাভ করেছে। গনি-শহিদ পরিষদের পূর্ণ প্যানেলই বিজয়ী হয়েছে। সভাপতি পদে আমার দেশ এর কাদের গণি চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক পদে সংগ্রামের মো: শহিদুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন।  

আজ (শুক্রবার) রাতে ভোট গণনা শেষে জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কায়কোবাদ মিলন এই ফলাফল ঘোষনা করেন। নির্বাচনে কাদের গণি চৌধুরী পেয়েছেন ৪৯৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাহাঙ্গীর আলম প্রধান পেয়েছেন ৩৮৭ ভোট। এছাড়া বাকের-খুরশীদ পরিষদের মুহাম্মদ বাকের হোসাইন পেয়েছেন ১৭৫ ভোট। 

সাধারণ সম্পাদক পদে গনি-শহিদ পরিষদের মো: শহিদুল ইসলাম ৬০৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী খুরশীদ আলম পেয়েছেন ৩৭৬ ভোট। এছাড়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহাম্মদ মাসুদ পেয়েছেন ৫৪ ভোট।

সহ-সভাপতির তিনটি পদে গনি-শহিদ পরিষদের বাছির জামাল ৭৩০ ভোট, শাহীন হাসনাত ৫৫২ ভোট এবং আনোয়ারুল কবির বুলু ৫৪৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। এ পদে বাকের-খুরশীদ পরিষদের আবদুল আউয়াল ঠাকুর ৩৪২ভোট, মাইন উদ্দিন আহমেদ ২৩৪ ভোট ও সাহাদত হোসেন খান ১৯০ ভোট পেয়েছেন।

যুগ্ম-সম্পাদক পদে গনি-শহিদ পরিষদের এরফানুল হক নাহিদ ৬৬৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বাকের-খুরশীদ পরিষদের মো: আমিনুল ইসলাম পেয়েছেন ৩৩৩ ভোট।

কোষাধ্যক্ষ পদে নিউ নেশনের মুহাম্মদ আনোয়ারুল হক (গাযী আনোয়ার) বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে বাসসের মো: দিদারুল আলম ৮০২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী গোলাম কিবরিয়া পেয়েছেন ১৭৯ ভোট। এছাড়া, অপর প্রতিদ্বন্দ্বী হালিম পেয়েছেন ২৮ ভোট।

প্রচার সম্পাদক পদে দেওয়ান মাসুদা সুলতানা ৫৮৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার প্রতিন্দ্বন্দ্বী জসিম মেহেদী পেয়েছেন ৪২০ ভোট। ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক পদে নয়াদিগন্তের আবুল কালাম ৬৭৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী এস এম আলমগীর পেয়েছেন ২২৮ ভোট। জনকল্যাণ সম্পাদক পদে খন্দকার আলমগীর হোসাইন ও দফতর সম্পাদক পদে শাহজাহান সাজু বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

৮ টি সদস্য পদে নির্বাচিতরা হলেন- ক্রমানুসারে খন্দকার হাসনাত করিম পিন্টু (৫৭১), রফিক মোহাম্মদ (৫৬৫), এইচ এম আল আমীন ( ৫২৭ ), সৈয়দ আলী আসফার (৪৯৩), শহীদুল ইসলাম (৪৭২), ডিএম আমিরুল ইসলাম অমর (৪৬৭), কাজী তাজিম উদ্দিন(৪৫৬) এবং রফিক লিটন (৩৮৩)। 

জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে আজ (২৭ এপ্রিল) সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন হয়। মোট ভোটারের সংখ্যা ছিলো- ১৬৪৯, ভোট দিয়েছেন ১০৮১ জন। এই নির্বাচনে দু’টি পরিষদে যথাক্রমে ‘বাকের-খুরশীদ ও ‘গনি-শহিদ’পরিষদ প্রার্থীরা ২০ পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন।

এছাড়া, প্যানেলের বাইরে সভাপতি পদে জাহাঙ্গীর আলম প্রধান ও সাধারণ সম্পাদক পদে মুহাম্মদ মাসুদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নির্বাচনে গণি- শহিদ পরিষদের প্রার্থীরা ২০টি পদেই নিরঙ্কুশ বিজয়ী হয়েছেনে।

ফলাফল ঘোষণার সময়ে ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ, মহাসচিব এম আবদুল্লাহ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের বর্তমান সভাপতি আবদুল হাই শিকদার’সহ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।    

এমবি